• আজ ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শ্রীপুরে কাওরাইদ স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে মাদকসেবীদের আখড়া

১০:০৯ অপরাহ্ণ | শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯ ঢাকা
SASTHO

মোশারফ হোসাইন তযু শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি: শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে চিকিৎসক, মেডিকেল এসিস্টেন্ট ও ফার্মাসিস্টসহ প্রয়োজনীয় লোকবল না থাকায় স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এলাকাবাসী।

দীর্ঘদিন থেকে এ অবস্থা চলতে থাকায় অনেকটা অচলাবস্থার সৃষ্টি হয়েছে কেন্দ্রটিতে। ফলে জরুরী মূহুর্তসহ প্রায় সময়ই এ এলাকার মানুষ ছুটতে হচ্ছে উপজেলার বিভিন্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে। এতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে ইউনিয়নের লোকজনকে। তাই দ্রুত তৃণমূলের স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম সচল করতে নুন্যতম হলেও একজন নিয়মিত চিকিৎসকের দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী। দীর্ঘদিন ধরে স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি অচলাবস্থায় পড়ে থাকায় এটি এখন গবাদি পশুসহ স্থানীয় বখাটে ও মাদকসেবীদের নিরাপদ অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে। এখানে মাদকসেবী ও বহিরাগতরা নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত হওয়ার অভিযোগও করেছেন এলাকাবাসী।

স্থানীয়রা জানান, কাওরাইদ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রটি কয়েক বছর ধরেই বন্ধ হয়ে আছে। প্রতিদিনই অনেক রোগী আসেন, কিন্তু বন্ধ থাকায় হতাশ হয়ে ফিরে যান তারা। পরিত্যক্ত ও তালাবন্ধ অবস্থায় থাকার কারণে কেন্দ্রটির ভেতরে এখন মাদকসেবীদের আড্ডায় পরিণত হয়েছে। বখাটেরা বিভিন্ন অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। এতে সেবাবঞ্চিত হয়ে পড়েছে ইউনিয়নের জনগণ। স্থানীয় হাজী ইব্রাহিম খলিলসহ অনেকে বলেন, যথাযথ নজরদারির অভাব ও সংশ্লিষ্ট বিভিাগের উদাসীনতায় স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি আজ ধ্বংসের পথে।

তিনি বলেন, গত পাঁচ বছরে একদিনও এই চিকিৎসা কেন্দ্রে একজনকেও সেবা দেয়া হয়নি, মাঝে মধ্যে একজন লোক আসে আবার কিছুক্ষণ পর চলে যায়। কাওরাইদ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের অফিস সহায়ক আনিছুর রহমান জানান, এখানে দায়িত্বপ্রাপ্ত চিকিৎসক প্রেষণে অন্য স্থানে চলে গেছেন। অন্যরাও আসেন না। চিকিৎসা দেয়ার মতো এখানে কেউ নেই। এ সুযোগে স্থানীয়রা ভেতরে গবাদি পশু রাখেন। কেউ তার নিষেধ মানে না। আর বিকেল হলেই মাদকসেবীসহ বিভিন্ন অপরাধীরা এখানে আশ্রয় নেয়। বাধা দিলে তারা তাকে বিভিন্ন হুমকি দেয়। মাদকসেবীদের ভয়ে তটস্থ থাকতে হয় সব সময়।

এ বিষয়ে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাইনুল হক জানান, জনবল না থাকায় অধিকাংশ সময় বন্ধ থাকে। সরকারি এই চিকিৎসা কেন্দ্রের ভেতরে মাদকসেবীদের আড্ডা ও স্থানীয়রা গবাদি পশু রাখায় আমরা বিব্রত। বিষয়টি একাধিকবার উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটিতে উপস্থাপন করেছি।

কাওরাইদ ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ বলেন, এ বিষয়ে আমার কিছুই করার নাই। আপাতত স্বাস্থ্য কেন্দ্র নিয়ে কিছুই লিখবেন না। উপজেলা আইনশৃঙ্খলা মিটিংয়ে বিষয়টা জানাবেন বলে চেয়ারম্যান জানান।