সংবাদ শিরোনাম
নরসিংদীতে প্রথমবারের মতো সর্বাধুনিক কার ওয়াশ ও সার্ভিসিং সেন্টার উদ্বোধন | রাজধানীতে ছিনতাইয়ের প্রস্তুতিকালে ‘ফইন্নি গ্রুপের’ ৬ সদস্য আটক | এবার চমেক চিকিৎসকদের জন্য ‘নোবেল’ চাইলেন মেয়র নাছির | তানোরে অবৈধ এসটিসি ব্যাংক সিলগালা | ফাঁড়িতে আসামির মৃত্যু: পুলিশ-এলাকাবাসীর সংঘর্ষে আহত ৩৩, পাঁচ পুলিশ প্রত্যাহার | লালমনিরহাটে সহকারী পরিচালকের বেত্রাঘাতে স্কুলছাত্রী অজ্ঞান | সাগরে মৎস আহরণে নিষেধাজ্ঞা, ফিশারিঘাট হারিয়েছে চিরাচরিত রুপ | ‘আবরার পানি খাইতে চাইলে পানি দেওয়া হয় নাই’ | নান্দাইলে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ রাখায় ৫০ হাজার টাকা জরিমানা | মাগরিবের আজানের ২০ মিনিটের মধ্যে ছাত্রীদের হলে ঢোকার নির্দেশ! |
  • আজ ২রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

এখন আর চা খাই না, কফি খাই: তাহেরী (ভিডিও)

৪:৪৯ অপরাহ্ণ | রবিবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯ আলোচিত

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- সাম্প্রতিক সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচিত-সমালোচিত হয়েছেন দাওয়াতে ইমানী বাংলাদেশের চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন আত-তাহেরী। এরইমধ্যে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলার আবেদন করা হয় আদালতে, যদিও সেই আবেদন খারিজ হয়ে যায়।

মামলায় মাজার পূজা, ওয়াজে নাচ-হাস্যরসসহ নানা অভিযোগ আনা হয় এই ইসলামি বক্তার বিরুদ্ধে। এছাড়া ওয়াজে বলা বাক্যগুলো কিছু শব্দ ব্যবহারের কারণে তিনি সমালোচিত, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে পড়েন।

তাহেরী তখন গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, আমি ১৭ বছর ধরে ওয়াজ করি। সাম্প্রতিক সময়ে ‘ঢেলে দেই’, ‘কোনো হইচই আছে?’ ‘পরিবেশটা সুন্দর না?’ এসব শব্দ বা বাক্য আমি কি অন্য সেন্সে বলতে পারি? আপনাদের বিবেক তো অবশ্যই আছে। আমি তো অন্য কোনো সেন্সে বলিনি, আমি তো উপস্থিতির আলোকেই বলবো। আমি শরীয়ত সম্মত, যেসব কুরআন সুন্নাহর সাথে সাংঘর্ষিক নয় সেসব বলবো। হয়তো বা আমরা কখনো আবেগতাড়িত হয়ে কখনো এসব দু-একটি শব্দ বলে ফেলি। অনেক সময় অনেকেই তো এরকম দু-একটা কথা বলে ফেলে- তাই বলে একেবারে ধর্মীয় অনুভূতির ওপর আঘাত এটা বলা ঠিক নয়।

তবে তাহেরী এসব শব্দ, বাক্য আর ব্যবহার করেন না বলেই জানালেন। নতুন একটি ওয়াজ মাহফিলের ভিডিও অনলাইনে প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে ওয়াজের এক পর্যায়ে তিনি বলেন, ‘আমি আর চা খাই না, কফি খাই। যদি কফি না থাকে তাহলে দরকার নাই, তারপরও চা না!’

এই ভিডিও প্রকাশ হওয়ার পর অনেকেই তাহেরীর প্রশংসা করেছেন। বলেছেন, চায়ের ‘ঢেলে দেই’ তাকে যে বিতর্কের মুখে ফেলেছিল সেখান থেকে তিনি সরে এসেছেন।

প্রসঙ্গত, কয়েকদিন ধরে ইউটিউব, ফেসবুক, টুইটারসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মুফতি গিয়াস উদ্দিন আত-তাহেরীর কিছু বক্তব্য নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা। ফেসবুক প্ল্যাটফরম ঘাঁটলেই চোখে পড়ছে তার আলোচিত সেই উক্তিগুলো। অনেকেই নিজের ছবি ফেইসবুকে আপলোড করে তার ওয়াজে ব্যবহৃত কিছু উক্তি লিখছে।

সম্প্রতি সময়ে এই মুফতির একটি ওয়াজে দেখা গেছে, হাতে একটি চায়ের কাপ নিয়ে তাতে চুমুক দেন তিনি। এরপর বলেন, ‘কেউ কথা কইয়েন না, একটু চা খাব? খাই একটু? আপনারা খাবেন? ঢেলে দেই? মুচকি হেসে আবারও বলেন, ঢেলে দেই? … ‘ভাই পরিবেশটা সুন্দর না? কোনো হইচই আছে? আমি কি কাউকে গালি দিয়েছি? কারোর বিরুদ্ধে বলতেছি? এরপরও সকালে একদল লোক বলবে, তাহেরী বালা (ভালো) না।’ বক্তব্যের মধ্যে অশ্লীল ভঙ্গিও করেন তিনি। সেই সঙ্গে নাচ-গানসহ আরও বিনোদনমূলক কথাও বলেন এই বক্তা।

এছাড়া ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে জিকিরের সময় নেচে-গেয়ে ‘বসেন বসেন, বইসা যান’ বলায় সমালোচিত হন তাহেরী।

তাহেরীর নতুন ভিডিও দেখুন এখানে-