সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মুসলিম বলে বিমান থেকে নামিয়ে দেয়া হলো দুই যুবককে

৫:৩৭ অপরাহ্ণ | রবিবার, সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- যুক্তরাষ্ট্রের একটি বিমানবন্দরে মুসলিম বলে দুই যুবককে বিমান থেকে নামিয়ে দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। ওই দুই যুবকের নাম আদেররাউফ আলখাওয়ালদেহ ও ইসাম আবদুল্লাহের।

জানা গেছে, তারা দুজনেই টেক্সাসের ডালাসের বাসিন্দা। ঘটনার দিন তারা বাড়ি ফিরছিলেন।

আদেররাউফ আলখাওয়ালদেহ ও ইসাম আবদুল্লাহর অভিযোগ, তারা মুসলিম বলে বিমান থেকে তাদের নামিয়ে দেয়া হয়। তাদের জানানো হয়েছিল, ক্রু সদস্য ও অন্যান্য যাত্রী তাদের সঙ্গে যাত্রা করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছিলেন না।

আবদুল্লাহ জানিয়েছেন, ‘এই দিনটি তার জীবনে সবচেয়ে অপমানজনক’। বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে তাদের পক্ষ থেকে একটি সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর– বার্মিংহাম থেকে ডালাসে যাওয়ার জন্য ওই দুই মুসলিম যুবক টিকিট বুক করেছিলেন। আমেরিকান এয়ারলাইন্সের আওতাধীন মিসা এয়ারলাইন্স নামে একটি আঞ্চলিক সংস্থা রয়েছে। সেই সংস্থার বিমানে তারা আলাদাভাবেই যাত্রা করছিলেন। বিমানে চাপার সময় একে অপরকে চিনতে পেরে দূর থেকে হাত দেখান। সেটাই হয়ে যায় কাল।

এরপরেই বিমানের ঘোষিকা জানান, ওই বিমানের সময় পিছিয়ে দেয়া হয়েছে। তখন আবদুল্লাহ শৌচালয়ে গিয়েছিলেন। আবদুল্লাহ দেখেন, দরজার বাইরে দাঁড়িয়ে এক বিমান সেবিকা আড়ি পাতচ্ছেন।

এরপর বিমানের ক্রু সদস্যরা যাত্রীদের জানান, বিমানটি বাতিল হয়ে গেছে এবং তাদের বিমান থেকে নামতে হবে। আলখাওয়ালদেহ জানান, ‘এক বিমান সেবিকা তখনই এক যাত্রীর কানে ফিসফিস করে বলেন যে নিরাপত্তার খাতিরে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।’

বিমান থেকে নামার পর সাদা পোশাকে একজন এফবিআই এজেন্ট তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেন। একটি আলাদা ঘরে নিয়ে গিয়ে তার নাম ও কাজের বিষয়ে জানতে চান। দীর্ঘক্ষণ তাদের জিনিস পথে তল্লাশি চালান।

কী কারণে এমনভাবে তল্লাশি চালানো হচ্ছে? এ বিষয়ে আবদুল্লাহ জিজ্ঞাসা করলে ওই এজেন্ট জানান, বিমানের ক্রু সদস্যরা পুলিশে খবর দিয়ে ছিল। তার সঙ্গে যাত্রা করতে ত্রু« সদস্যরা ভরসা পাচ্ছেন না।

ওই এজেন্ট আরও বলেন, ক্রু সদস্যদের দাবি ছিল, সেখানে গিয়ে আবদুল্লাহ দু’বার বাথরুমে ফ্ল্যাস করেছেন। তাতে তাদের মনে সন্দেহ দানা বেঁধেছে।

আবদুল্লাহ বলেছেন, মুসলিম হওয়ার কারণেই তাকে এমন পক্ষপাতমূলক আচরণের সম্মূখীন হতে হয়েছে। আমরা সকলকেই ইতিবাচক পরিষেবা দেয়ার চেষ্টা করে থাকি। বিষয়টির অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত চলছে।