সংবাদ শিরোনাম
গাজীপুরে দীর্ঘ সময় মর্গে লাশ ফেলে রাখার অভিযোগে হামলা এবং ভাংচুর, আটক-৩ | দুর্দান্ত খেলেও ভারতকে হারাতে পারলো না বাংলাদেশ | বুয়েটে বঙ্গবন্ধুর ছবি সম্বলিত ব্যানার থেকে মুছে ফেলা হলো ছাত্রলীগের নাম | ভারতের বিপক্ষে ১-০ গোলে এগিয়ে বাংলাদেশ | ‘বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যাকারীদের মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত’- কাদের | বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির সাবেক ৭ এমডিসহ ২৩ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা | সাভার থেকে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন হরকাতুল জিহাদের এক সদস্য আটক | পাবনায় ছেলের পাথরের আঘাতে বাবার মৃত্যু | বশেমুরবিপ্রবি’র প্রভোষ্ট ও বিভিন্ন অনুষদের চেয়ারম্যানসহ ৭ জনের পদত্যাগ | অবৈধ স্থাপনা সরাতে সাবেক সাংসদ উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ৪ জনকে নোটিশ |
  • আজ ১লা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

স্বামীর বাড়ি থেকে নিয়ে এসে মেয়েকে ধর্ষণ করলো বাবা!

৬:৫১ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৯ Uncategorized

মোঃ নজরুল ইসলাম, ঝালকাঠি প্রতিনিধি- ঝালকাঠিতে বাবার বিরুদ্ধে মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ওই লম্পট বাবা বাবুল ফকিরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

জানা গেছে, জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. আলতাফ হোসেন পুলিশ খবর দিয়ে বাবুলকে ধরিয়ে দেন। এ ঘটনায় ঝালকাঠি থানায় মামলা হলে বাবা বাবুল ফকিরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়।

এদিকে পুলিশ ভিকটিমকে বুধবার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, সদর উপজেলার নবগ্রাম ইউনিয়নের দশনাকান্দা গ্রামের বাবুল ফকিরের মেয়ে ২০১৬ সালের ১৭ জানুয়ারি ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় বাজারে নিয়ে আসার পথে রাতে একটি সেতুর ওপর জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে বাবুল ফকিরকে তার শ্যালকরা মারধর করে। ঘটনার পর সে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে যায়। কিছুদিন ঢাকায় অবস্থান করার পরে সে আবার গ্রামের বাড়িতে ফিরে আসে। ২০১৮ সালে সে তার মেয়েকে পার্শ্ববর্তী গ্রামের একটি ছেলের সঙ্গে বিয়ে দেয়।

বিয়ের কিছুদিন পর স্বামীর কাছ থেকে বাবুল ফকির মেয়েকে নিয়ে আসে। একপর্যায়ে তাদের বিয়ে বিচ্ছেদ ঘটিয়ে ৮০ হাজার টাকা খোরপোষ নিয়ে আবারো এলাকা ছেড়ে গা ঢাকা দেয়। সম্প্রতি বাড়িতে এসে গত ১০ সেপ্টেম্বর তাকে পুনরায় ধর্ষণ করে। মেয়েটির চিৎকার শুনে মা ও প্রতিবেশীরা এসে ঘটনা দেখতে পায়।

বাবুল ফকির এ ঘটনার পর থেকে ঝালকাঠি শহরে এসে আশ্রয় নেয়। পরিবারকে তিনি ঢাকায় আছেন বলে জানান। পরে মেয়েটি ঝালকাঠি জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরে উপপরিচালক মো. আলতাফ হোসেনের কাছে অভিযোগ করেন। আলতাফ হেসেন কৌশলে মেয়েটির বাবা বাবুল ফকিরকে তার অফিসে ডেকে আনেন। সে অফিসে আসলে ওই কর্মকর্তা তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেন।

মো. আলতাফ হোসেন বলেন, ভিকটিম প্রাথমিক পর্যায়ে আমাদের অফিসে বাবার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এবং নিরাপত্তা চেয়ে আবেদন করেছিল। তার আবেদন পেয়ে আমি কৌশলে বাবুলকে ডেকে এনে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছি। এ ঘটনায় থানায় মেয়েটি বাদী হয়ে একটি মামলা করেছে।

ঝালকাঠি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবু তাহের বলেন, বাবার বিরুদ্ধে মেয়েটি মামলা দায়ের করেছে। পুলিশ বাবাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। মেয়েটির স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়।