ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় আশ্রয়ন প্রকল্পের ঘরে গরুর বসবাস !

৫:৩০ অপরাহ্ণ | সোমবার, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৯ বরিশাল
Jalakhati

মোঃনজরুল ইসলা,  ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির কাঠালিয়ায় জমি আছে ঘর নেই হতদরিদ্রদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিলের আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর আওতায় ১ লক্ষ টাকা ব্যায়ে নির্মানকৃত ঘরে মানুষ নয় গরুর বসবাস। ঘটনাটি উপজেলার আওরাবুনিয়া ইউনিয়নের পূর্ব ছিটকি এলাকায় আশ্রব আলী সিকদারের বাড়িতে ঘটেছে।

শনিবার সরেজমিনে গিয়ে জানাগেছে, নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে আশ্রব আলি সিকদারের একমাত্র জামাই মোঃ নজরুল ইসলাম জনপ্রতিনিধিদের যোগসাজসে আশ্রয়ন প্রকল্প-২ এর ১ লক্ষ টাকার একটি ঘর তার (নজরুল) নামে হাতিয়ে নেয়। সরকারি এঘর খানা নজরুল তার শ্বশুরের বাড়িতে, শ্বশুরের বড় দোতালা কাঠের ঘরের সামনেই নির্মান করেন। ঘর খানার চালের কাজ সমাপ্ত হলে ৩ মাস পূর্বে ঘরটি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে নজরুল বুজে নেয়। টয়লেট এবং ঘরের বেড়ার বাকি মালামাল দিয়ে নজরুল তার শ্বশুরের ঘরের সাথে আরেকটি গোয়াল ঘর ও বাড়ির সামনে একটি দোকানঘর নির্মান করেন।

 স্থানীয় ভাবে অভিযোগ রয়েছে সরেজমিনে না গিয়েই ঘরের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। ঘরটির মানুষের জন্য বরাদ্ধ হলেও নির্মান হয়েছে গরুর ঘর।আর সে ঘরে নজরুলের শ্বশুরের গরু বসবাস করে। নজরুল উপজেলার তালগাছিয়া গ্রামের মোঃ সোনামউদ্দিনের পুত্র।

এ ব্যাপারে জামাই নজরুল ইসলাম এর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানায়, উপজেলা পরিষদে ঘরের বরাদ্ধ আসলে অনলাইনের মাধ্যমে তিনি আবেদন করেন। আবেদনের পরিপেক্ষিতে সংশ্লিষ্ট দপ্তর তার নামে একখানা ঘর বরাদ্ধ দেয়।

এ ব্যাপারে আওরাবুনিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ কামরুজ্জামান লিটন এর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ঘর বরাদ্ধ দেয়ার ক্ষমতা আমাদের না উপজেলা প্রশাসনের। আমরা শুধু আবেদন গুলো কর্তৃপক্ষের কাছে পৌছে দিয়েছি। তারা কাকে কিভাবে ঘর দিয়েছে তা আমি জানিনা।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আকন্দ মোহাম্মদ ফয়সাল উদ্দিন জানান, সরেজমিনে তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।