রাস্তা নির্মানে ২১ দিন শেষ হয়নি ২ বছর ৯ মাস ২৫ দিনেও – ভোগান্তিতে স্থানীয়রা

৯:০৭ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ৩, ২০১৯ রাজশাহী
Rajshahi

ওবায়দুল ইসলাম রবি, রাজশাহী প্রতিনিধি: বর্তমান সরকারের সময় জেলা, উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চল উন্নয়ন হলেও রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার প্রায় সড়ক সংস্কার করা হচ্ছে না। বাঘমারার উপজেলা কানাইশহর, ভায়া বেলঘরিয়া, নারায়ণপুর এবং দিঘিপাড়ার খানা খন্দের রাস্তার ভোগন্তির শিকার স্থানীয়রা। বাঘমারার উপজেলা প্রকৌশলী অধিদপ্তরের তাল বাহানার কারনে ওই সকল রাস্তা সংস্কার করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ স্থানীয়দের।

উপজেলা ওই রাস্তা গুলো চার দলীয় জোট সরকারের আমলে নির্মাণ করা হয়েছিল। পরবর্তীতে মহাজোট সরকারের সময়ে অবশিষ্ট রাস্তা পাকা করণ করা হয়। উপজেলার শিলগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হাফেজিয়া মাদ্রাসা, সোনাদিঘী কারিগরি কলেজ, কুশলপুর দাখিল মাদ্রাসা, বেলঘরিয়া পোস্ট অফিস, বেলঘরিয়াহাট ফাজিল মাদ্রাসার শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ হাজার-হাজার পথচারী চলাচল করে এই রাস্তায়।

রাস্তাটির বিভিন্ন পয়েন্টে এক থেকে দেড় ফিট খানা খন্দের সৃষ্টি হয়েছে। কোথাও কোথাও ইট,পাথর,বালি খোয়া,বিটুমিন, পিচ উঠে গিয়ে পাকা রাস্তার চিহ্ন মাত্র নাই। দ্রুত সময়ের মধ্যে রাস্তাটি সংস্কার না হলে, যে কোন মুহূর্তে প্রাণহানির মতো ঘটনা ঘটতে পারে। কুশলপুর মাদ্রাসার পূর্ব দিকে (বাগমারার অংশ), শিলগ্রাম বাজারের পশ্চিমপাশ এবং নারায়ণপুর ব্রজেনের বাড়ীর পূর্ব দিকে (মান্দার অংশে), যে ভাঙ্গণ সৃষ্টি হয়েছে তাতে রাস্তাটি বিলীন হওয়া কিছু সময়ের ব্যবধান মাত্র। স্থানীয়রা রাস্তা সংস্কার করার জন্য পথচারীদের নিকট আর্থিক সহায়তা নিয়ে ভাঙ্গনস্থল চলাচলের কিছুটা উপযোগী করেছে।

স্থানীয়রা বলেন, উপজেলার রাস্তা গুলো মান্দা উপজেলার সীমান্তবর্তী বলে কর্তৃপক্ষের তেমন নজরে আসে না। ওই রাস্তার জন্য তৎকালীন  (২৮ জানুয়ারি ২০১৭) মান্দা উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী মুরশেদুল হাসানের রাস্তাটি সংস্কারের বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, একুশ দিন আগে ঢাকায় কাগজপত্র পাঠানো হয়েছে, খুব শিগ্রই রাস্তাটি সংস্কার করা হবে। কিন্ত ২ বছর ৯ মাস ২৫ দিন অতিবাহিত হলেও তাদের দেয়া ২১ দিন শেষ হয়নি। দায়িত্বশীল চেয়ার থেকে ভিত্তিহীন তথ্য প্রদান কতটা যৌক্তিক ?

এ বিষয়ে গতকাল বর্তমান মান্দা উপজেলা স্থানীয় সরকার অধিদপ্তরের প্রকৌশলী শাহ্ মোঃ শহিদুল হক বলেন, শিঘ্রই রাস্তাটি সংস্কার করা হবে। তবে উপজেলা স্থানীয় সরকার অধিদপ্তরের প্রকৌশলী সানোয়ার হোসেন মুঠোফোনে জানিয়েছেন, ঢাকায় পাক্কলন পাঠানো হয়েছে কানাইশহর (খুজিপুর) ভায়া বেলঘরিয়া রাস্তাটি রিপিয়ারিং করে দেয়া হবে। পাক্কলন পাশ হতে কতদিন সময় লাগতে পারে এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, টেন্ডার হয় জেলা সদরে, তিন মাসের মতো সময় লাগতে পারে।