মোংলায় দুটি ফিশিং ট্রলারসহ ২৩ ভারতীয় জেলে আটক

৮:৫৩ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, অক্টোবর ৪, ২০১৯ খুলনা, দেশের খবর

সময়ের কণ্ঠস্বর, বাগেরহাট- বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের জলসীমায় অবৈধভাবে প্রবেশ করে মাছ শিকারের অভিযোগে এমভি স্বর্ণা দীপ ও আমরিছা নামের ২টি ফিশিং ট্রালারসহ ২৩ ভারতীয় জেলেকে আটক করেছে নৌ-বাহিনী।

শুক্রবার বিকেল ৪টায় আটককৃত জেলেদের মোংলা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। আটককৃতদের বিরুদ্ধে নৌ-বাহিনীর পক্ষে এসএম ভুইয়া বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছে।

আটককৃতরা হলেন-হরিরঞ্জন, শুকুমার দাস, শ্রিমন্ত দাস, নিরোদ দাস, বিশ্বজিদ সাহা, অনীল পুরকাইত, গুরুপদ জানা, তপন পুরকাইত, বিজয় দাস, নিরঞ্জন দাস, প্রনব মন্ডল, আপান্না, কালিপদ সমন্ত, কার্তিক জেনা, দুদ কুমার ভুইয়া, আভি, পাওলিয়া, নারী সাম্মা, দানিয়া, রামু, রাম ও আপ্পানা। এসব জেলেদের বাড়ি ভারতের কোলকাতার চব্বিশ পরগোনা ও বিজয় নগর এলাকায়।

এর আগে মঙ্গলবার রাতে বঙ্গোপসাগরে সুন্দরবন উপকূলের ফেয়ারওয়ে বয়া এলাকায় থেকে আরও ১৫ জেলেকে আটক করে নৌবাহিনীর সদস্যরা। আটক ওইসব জেলেরা বাগেরহাট কারাগারে রয়েছে।

মোংলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকবাল বাহার চৌধুরী জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বঙ্গোপসাগরের ফেয়ারওয়ে বয়া এলাকায় নিয়মিত টহল দেয়ার সময় নৌবাহিনীর সদস্যরা বাংলাদেশ জলসীমায় দুইটি ভারতীয় ফিশিং ট্রলার দেখতে পায়। পরে তারা সেখানে গিয়ে অবৈধভাবে বাংলাদেশ জলসীমায় অনুপ্রবেশ করে মাছ শিকারের অভিযোগে এফবি স্বর্ণদ্বীপ ও এফবি আমৃথে নামের দু’টি ভারতীয় ফিশিং ট্রলারসহ ২৩ ভারতীয় জেলেকে আটক।

বঙ্গোপসাগর থেকে আটক হওয়া ওই জেলেদের শুক্রবার বিকালে মোংলা থানায় হস্তান্তর করে বিএনএস মোংলা নৌঘাটির সদস্যরা। এই ঘটনায় নৌবাহিনী আটককৃত জেলেদের বিরুদ্ধে ১৮৯৩ সালের সামুদ্রিক মৎস্য অধ্যাদেশের ২২ ধারায় মংলা থানায় একটি মামলা করেছে। সন্ধ্যায় তাদের আদালতের নির্দেশে বাগেরহাট কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Loading...