ইউনিয়ন পর্যায়ে সুপেয় পানি নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

১:৩৩ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১০, ২০১৯ জাতীয়

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক:ইউনিয়ন পর্যায় পর্যন্ত নিরাপদ সুপেয় পানি নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা । নাগরিক সুবিধা বাড়ানো ও উন্নয়ন প্রকল্পগুলো সময়মতো বাস্তবায়নে ওয়াসাকে আরও উদ্যোগী হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি।

এইসঙ্গে পানির অপচয় না করতে সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেল থেকে এসব উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেন শেখ হাসিনা।

ঢাকা এনভায়রনমেন্টালি সাসটেইনেবল ওয়াটার সাপ্লাই প্রকল্পের অধীনে ঢাকা ওয়াসার তিনটি পানি শোধনাগারের উদ্বোধন ও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, সবার জন্য নিরাপদ পানি সরবরাহ নিশ্চিতে ৩টি মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়ন করছে সরকার।

ঢাকার চারপাশের নদীগুলো দূষণমুক্ত করে ভূর্গভস্থ পানির ওপর চাপ কমানোর কথাও জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, শুধু শহরবাসী নয়, গ্রামের মানুষও যাতে নিরাপদ সুপেয় পানি সেবা পায় সে লক্ষ্যে সরকার কাজ করছে।

এর আগে পদ্মা-যশলদিয়া পানি শোধনাগার প্রকল্প, সাভারের তেঁতুলঝরা-ভাকুর্তা এলাকায় ওয়েল ফিল্ড প্ল্যান্টের উদ্বোধন এবং রূপগঞ্জের গন্ধর্বপুর ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টের ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন করেন সরকারপ্রধান।

লৌহজং উপজেলার পদ্মা যশলদিয়া পানি শোধন প্ল্যান্টের মাধ্যমে প্রতিদিন ৪৫ কোটি লিটার শোধিত পদ্মা নদীর পানি আসবে ঢাকায়। পদ্মার পানি ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টে নিয়ে সেখান থেকে পাইপের মাধ্যমে ঢাকায় পাঠানো হবে। ৩ হাজার ৬৭০ কোটি টাকা ব্যয়ে এ প্রকল্প স্থাপন করা হয়েছে।

ঢাকার ক্রমবর্ধমান পানি চাহিদা মেটাতে ২০১৫ সালের অক্টোবরে এ প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একটি চায়নিজ কোম্পানি এ প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে।

রাজধানীর মিরপুর এলাকায় ভূগর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরশীলতা কমাতে সাভারের তেঁতুলঝরা-ভাকুর্তা এলাকায় ওয়েলফিল্ড নির্মাণ (১ম পর্ব) প্রকল্প নির্মাণ করা হয়। এ প্রকল্প থেকে প্রতিদিন ১৫ কোটি লিটার পানি পাবে ঢাকাবাসী।

ওয়াসা মিরপুর এলাকায় বর্তমানে ৩০ কোটি লিটার পানি সরবরাহ করে আসছে প্রতিদিন। যার অধিকাংশই আছে আন্ডারগ্রাউন্ড ওয়াটার থেকে। ৫৭৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত এ প্রকল্প দক্ষিণ কোরিয়ার একটি কোম্পানি বাস্তবায়ন করে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় সরকার ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

সময়ের কণ্ঠস্বর/ফয়সাল

Loading...