• আজ ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশ থেকে ইলিশ ধরে নিয়ে যাচ্ছে ভারতীয়রা, অসহায় স্থানীয় জেলেরা

১২:২১ অপরাহ্ণ | সোমবার, অক্টোবর ১৪, ২০১৯ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- প্রজনন মৌসুমে আগামী ৩০শে অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন ইলিশ শিকারে সরকারের নিষেধাজ্ঞা মেনে জাল গুটিয়ে বসে আছেন দেশের জেলেরা। নিষেধাজ্ঞার এই সময়টাতে ইলিশ শিকারী জেলেরা বেকার সময় কাটালেও বসে নেই ভারতীয় জেলেরা।

বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশ পানিসীমায় ঢুকে অবাধে ইলিশ মাছসহ অন্যান্য মাছ ধরে নিয়ে যাচ্ছে ভারতীয় জেলেরা। বঙ্গোপসাগরের বয়া এলাকা থেকে পূর্বে কলাপাড়া উপকুল পর্যন্ত ভারতীয় ট্রলিং ট্রলার দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

এদিকে একইভাবে বরগুনায়ও পাশের দেশের জেলেরা এই ইলিশ ধরছে বলে অভিযোগ করেছে উপকূলের জেলেরা। তাদের অভিযোগ, প্রতিদিনই শত শত ভারতীয় ট্রলার বাংলাদেশের সমুদ্রসীমায় প্রবেশ করে ইলিশ শিকার করে নিয়ে যাচ্ছে। একই অভিযোগ ট্রলার মালিক সমিতিরও।

মৎস্য বিভাগের দাবি, প্রজনন মৌসুমের নিষেধাজ্ঞার সময়ে কেউ যাতে ইলিশ শিকার করতে না পারে সে ব্যাপারে সতর্ক তারা। তবে, সমুদ্রসীমায় ভারতীয় জেলেদের অনুপ্রবেশের কথা উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে বলে জানান বরগুনার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ।

এদিকে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে বঙ্গোপসাগরের ফেয়ারওয়ে বয়া এলাকায় সাগরে অভিযান চালিয়ে বাংলাদেশ নৌবাহিনী তিনটি ট্রলারসহ ৩৮ জন ভারতীয় জেলেকে আটক করে মোংলা থানায় সোপর্দ করে। পরে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

বাংলাদেশ ফিসিং ট্রলার মালিক সমিতির সহ-সভাপতি সাইফুল ইসলাম খোকন জানান, ভারতীয় জেলেদের উৎপাতে দেশি জেলেরা অসহায়। তিনি আরো বলেন, অতীতে ভারতীয় জেলেরা বাংলাদেশের পানিসীমার কিছুটা ভেতরে ঢুকে মাছ শিকার করতো। বর্তমানে তারা সাগরের বয়া এলাকা থেকে পূর্বে কলাপাড়া উপকূল পর্যন্ত ট্রলিং ট্রলার নিয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। ভারতীয় জেলেরা দ্রুতগতির ট্রলারে বসে বাইনোকুলার দিয়ে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করে চলাচল করে থাকে বলে জেলেদের বরাত দিয়ে তিনি জানান।

দুবলা ফিশারমেন গ্রুপের সভাপতি কামাল উদ্দিন আহম্মেদ অভিযোগ করেন, বর্তমানে সাগরে ভারতীয় জেলেদের উৎপাত বহুগুণ বেড়েছে। প্রায় সারাবছরই ভারতীয় জেলেরা সাগরে টহলরত বাংলাদেশ নৌবাহিনীর জাহাজকে ফাঁকি দিয়ে দেশীয় পানিসীমায় অনুপ্রবেশ করে মাছ ধরে নিয়ে যায়। ভারতীয় এসব জেলেরা অনেক সময় দেশীয় জেলেদের মারধর করে মাছ লুট করেও নিয়ে যায়। সাগরে আরো বেশি করে নৌবাহিনীর টহল বৃদ্ধির দাবি জানান তিনি।

Loading...