সংবাদ শিরোনাম
তওবা পাঠ করে ইসলাম ধর্মগ্রহণ করেছেন ১৭ জন কাদিয়ানি | ‘বিএনপি-জামায়াতের চেয়ে আ.লীগের ধান্দাবাজরাই বেশি ভয়ংকর’- নাসিম | ‘আত্মসম্মান বিসর্জন দিতে ক্রিকেট খেলি না’- মাশরাফি | নিয়ন্ত্রন হারিয়ে গাছের সাথে প্রাইভেটকারের ধাক্কা; নিমিষেই ঝড়ে গেলো ৬ টি তাজা প্রান | আলোচিত সেই মিন্নিকে দেখলেই ঘিরে ধরছেন কৌতূহলী মানুষ! কেনাকাটায় ডিসকাউন্টও দিচ্ছেন দোকানীরা’! | ‘বিদ্যুৎ-পানির দাম বাড়লে সবকিছুর দাম বেড়ে যাবে’- জিএম কাদের | ‘পানি-গ্যাস-বিদ্যুতের দাম বাড়ালে ক্ষমতায় থাকা যাবে না’- মান্না | নারীদের প্রতি আকর্ষণ নেই কার? প্রশ্ন পাপিয়ার | ‘জনগণের ওপর প্রতিশোধ নিতেই বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হচ্ছে’- ফখরুল | বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ স্থগিত, নতুন কর্মসূচি ঘোষণা |
  • আজ ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ভারতে পালানোর সময় আবরার হত্যা মামলার আসামি সাদাত গ্রেফতার

৬:২০ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৫, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ

শাহ্ আলম শাহী, স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর থেকে- দিনাজপুরের বিরামপুর সীমান্ত এলাকা দিয়ে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় বুয়েট ছাত্র আবরার হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামি নাজমুস সাদাত সামসকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আজ মঙ্গলবার ভোরে বিরামপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী কাটলা এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। সে এনজিও কর্মী’র ছদ্মাবেশে সেখানে অবস্থান করে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে পালিয়ে যাওয়ার প্রচেষ্টা করছিলো।

ডিবি ডিএমপি পুলিশ তাকে গ্রেফতারের পর ঢাকা গোয়েন্দা কার্যালয়ে নিয়ে গেছে। তার বাড়ি জয়পুরহাটে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বিরামপুর থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, আবরার হত্যা মামলার এজাহারভুক্ত আসামী নাজমুস সামস বিরামপুরের কাটলা সীমান্ত পথ ব্যাবহার করে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকা গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল বিরামপুর থানার সহযোগীতায় উপজেলার কাটলা গ্রামে অভিযান চালায়।

পুলিশ জানায়, ডিএমপির ডিবি পুলিশের একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বিরামপুর কাটলা বাজারের রফিকুল ইসলামের পরিচালিত ‘সততা সার্বিক গ্রাাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেড’ নামের একটি এনজিওতে অভিযান চালায়। পরে সেখান থেকে নাজমুস সাদাত সামস্কে গ্রেপ্তার করে ঢাকায় নেওয়া হয়।

‘সততা সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেড’ এর ম্যানেজার মো. লিটন হোসেন জানান, গত কয়েক দিন আগে জয়পুরহাট জেলার সাবেক এক ইউপি চেয়ারম্যান মো. আতাউর রহমান নামের এক ব্যক্তি নিজের ভাগিনা পরিচয়ে নাজমুস সাদাতকে রেখে যান। সে হত্যা মামলার আসামি এটা আমরা জানতাম না। তার বাড়ি জয়পুরহাটে বলে পুলিশ জানায়। পরে তাকে ঢাকা থেকে আসা গোয়েন্দা পুলিশ ঢাকায় নিয়ে যায়।

ম্যানেজার লিটন জানান, সাবেক ওই ইউপি চেয়ারম্যান মো. আতাউর রহমান ‘সততা সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেড’ এর পরিচালক রফিকুল ইসলামের পরিচিত।

স্থানীয় কাটলা ইউপি চেয়ারম্যান নাজির হোসেন জানান, আলোচিত হত্যা মামলার আসামি নাজমুস সাদাত সামস ভারতে পালানোর উদ্দেশ্যে ‘সততা সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেড’ এর কর্মী পরিচয়ে লুকিয়ে ছিলেন। সে একজন হত্যা মামলার আসামি এ বিষয়ে আমরা জানতাম না।

এ বিষয়ে জানতে ‘সততা সার্বিক গ্রাম উন্নয়ন সমবায় সমিতি লিমিটেড’ এর পরিচালক রফিবুলের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তার মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

Loading...