• আজ ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গাজীপুরে দীর্ঘ সময় মর্গে লাশ ফেলে রাখার অভিযোগে হামলা এবং ভাংচুর, আটক-৩

১:৫৪ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, অক্টোবর ১৬, ২০১৯ ঢাকা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, সময়ের কণ্ঠস্বর: গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে  ২০ ঘন্টার অধিক সময় লাশ ফেলে রাখার অভিযোগে আবাসিক চিকিৎসকের উপর হামলা এবং হাসপাতালে ভাংচুর করেছেন নিহতদের স্বজন এবং বন্ধুরা।

মঙ্গলবার দুপুর আনুমানিক সাড়ে ১১টার দিকে ৩০ জনের একটি দল আবাসিক চিকিৎসক প্রণয় ভূষণ দাসের কক্ষে প্রবেশ করে তার উপর হামলা চালায়। হামলায় আবাসিক চিকিৎসক আহত হয়েছেন।

এসময় বিক্ষুব্ধরা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষের অফিসের জানালার কাঁচ ও ফুলের টব ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। হামলায় জড়িত তিনজনকে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেন মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা।

হাসপাতাল সংলগ্ন ব্যবসায়ী এবং কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ২জনের লাশ গ্রহনের জন্য গতকাল রাত থেকেই সহপাঠী, বন্ধু এবং স্বজনরা অপেক্ষা করছিলেন। দীর্ঘ সময় অপেক্ষার পর মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত লাশের ময়না তদন্ত না হওয়ায় তারা উত্তেজিত হতে শুরু করেন।  এবং  তারা উত্তেজিত অবস্থায় হাসপাতালের ভিতরে প্রবেশ করেন।

হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক প্রণয় ভূষণ দাস সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, মর্গে লাশ থাকার বিষয়টি তিনি মঙ্গলবার সাড়ে ১১টার দিকে জানতে পারেন। এ সময় তিনি মরদেহ দুটির ময়নাতদন্তের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। এরই মাঝে ২৫-৩০ যুবক একসঙ্গে তার অফিসে প্রবেশ করে ডাক্তার খুঁজতে থাকে। তিনি নিজেকে ডাক্তার পরিচয় দেওয়া মাত্রই ওই যুবকরা কিছু বুঝে ওঠার আগেই মারধর শুরু করে। কেউ কেউ লাঠিসোটা খুঁজতে থাকেন।

তিনি আরও জানান, উত্তেজিত যুবকদের হাত থেকে রক্ষা পেতে তিনি দৌড়ে পাশের ভবনে অধ্যক্ষের অফিসে দোতলায় চলে যান। সেখানেও ওই যুবকরা গিয়ে তাকে লাঞ্ছিত করে এবং অধ্যক্ষের অফিসের জানালা, ফুলের টব ভাঙচুর করে। এসময় তিনি একটি কক্ষে প্রবেশ করে দরজা বন্ধ করে নিজেকে  রক্ষা করেন।

এদিকে হাসপাতালের চিকিৎসককে বহিরাগতরা লাঞ্ছিত এবং কলেজের আসবাবপত্র ভাঙচুরের খবর পেয়ে মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা ক্লাস থেকে বেরিয়ে আসেন। পরে তারা ধাওয়া দিয়ে তিন হামলাকারীকে আটক করেন। আটককৃতরা হলেন, বরগুনা জেলার ছোট গরি চন্না এলাকার জাফর হোসেনের ছেলে রোহান(১৮), গাজীপুর বাসন থানা এলাকার মৃত আবুল হোসেনের ছেলে অন্তর (১৭), ঢাকা নবাব গঞ্জ এলাকার আইয়ুব আলীর ছেলে শান্ত (২০)। খবর পেয়ে সদর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং আটকদের থানায় নিয়ে যায়।

সদর থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, মরদেহের ময়নাতদন্ত করতে দেরি হওয়ার অভিযোগে বিক্ষুব্ধ বন্ধু বান্ধব এবং স্বজনরা হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসকের ওপর হামলা চালিয়েছে। এ সময় তিন হামলাকারীকে মেডিকেল কলেজের ছাত্র, দায়িত্বরত আনসার সদস্য ও কর্মচারীরা আটক করেন।

এ ব্যাপারে মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লিখিত অভিযোগ দেয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন বলে জানা যায়।

উল্লেখ্য, সোমবার দুপুরে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ভোগড়া বাইপাস মোড়ে লড়ি চাপায় মোটরসাইকেল আরোহী মগোর খাল এলাকার হিরা দেবনাথের ছেলে জয়দেব নাথ (১৭) এবং একই এলাকার মিঠু মিয়ার ছেলে সজিব সরকার(১৭) নিহত হন।

Loading...