• আজ ৩রা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

জরায়ু অপারেশন করতে গিয়ে গৃহবধুর মূত্রথলি কেটে ফেলল ডাক্তার!

৪:৫২ অপরাহ্ণ | রবিবার, অক্টোবর ২০, ২০১৯ দেশের খবর, ময়মনসিংহ

আব্দুল মান্নান পল্টন, ময়মনসিংহ ব্যুরো- ময়মনসিংহে হাফিজা (৪৫) নামের এক গৃহবধুর জরায়ুর অপারেশন করতে গিয়ে তার মুত্রথলি কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে ডাক্তারের বিরুদ্ধে।

ওই গৃহবধু ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলার পূর্ব নড়াইল গ্রামের বাসিন্দা জহুর উদ্দিনের স্ত্রী হাফিজা। অর্থাভাবে নিজ বাড়িতে বিনা চিকিৎসায় অসহনীয় যন্ত্রনায় ছটফট করছেন তিনি।

হাফিজার স্বামী জহুর উদ্দিন জানান, জরায়ু সমস্যাজনিত কারনে গত আড়াই মাস পুর্বে তার স্ত্রীকে হালুয়াঘাট উপজেলার ধারা বাজারে অবস্থিত আল-শিফা মেডিসিন ভান্ডার নাছির উদ্দিনের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে ডাক্তার নাসির উদ্দিন তাকে ময়মনসিংহের ভাটিকাশরস্থ আল্-হেরা হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনোস্টিক সেন্টারে পাঠান।

আল্-হেরা হাসপাতাল এন্ড ডায়াগনোস্টিক সেন্টার অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর রোগীকে জানান তার জরায়ুতে ঘা হয়েছে। জরুরি ভিত্তিতে জরায়ুর অপারেশন না করলে মৃত্যু হতে পারে। হতদরিদ্র হাফিজার পরিবার টাকা-পয়সা সংগ্রহ করে ওই আল-হেরা ডায়াগনোস্টিক সেন্টারেই অপারেশন করান।

অপারেশনের পরদিন থেকে তার অবস্থার অবনতি হতে থাকে। এ অবস্থায় আবারও আল-হেরা ডায়াগনোস্টিক সেন্টারেই ডাক্তার দেখাতে আসেন। কিন্তু কর্তৃপক্ষের দুর্ব্যবহার করে তার চিকিৎসার কাগজপত্র ছিনিয়ে নিয়ে হাফিজাকে বের করে দেন। পরে অবস্থার আরও অবনতি হলে এক আত্মীয়ের মাধ্যমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান তিনি।

সেখানের ডাক্তাররা তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানান ভুল চিকিৎসায় হাফিজার মূত্রথলি কেটে ফেলা হয়েছে। এ ব্যাপারে তারা হাফিজাকে সংশ্লিষ্ট ডাক্তারের বিরুদ্ধে মামলা করার পরামর্শ দেন। বর্তমানে হাফিজা তার নিজ বাড়িতে অসহনীয় যন্ত্রনায় দুর্বিসহ জীবন কাটাচ্ছেন।

পানি পান করার সাথে সাথেই তা জরায়ু দিয়ে বের হয়ে যায়। হাফিজার স্বামীও দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ। হাফিজা ও তার স্বামী জহুর উদ্দিনসহ এলাকাবাসীরাও ভুল চিকিৎসকের দৃষ্টান্তমুলক বিচারের দাবী জানান।

Loading...