অসহায় তরুণীর ফোনে মন্ত্রীর তাৎক্ষনিক তৎপরতা, অতঃপর উদ্ধার অপহরণের শিকার যুবক

৫:২৪ অপরাহ্ণ | সোমবার, নভেম্বর ৪, ২০১৯ স্পট লাইট
ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার

রবিউল ইসলাম, সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম ফেসবুকে দৈনন্দিন জীবনে নিজের নানান কর্মকান্ড নিয়ে নিয়মিত তৎপর থাকেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার । ফেসবুকে তাকে করা সাধারন মানুষের নানা জিজ্ঞাসার উত্তরও দেন সাবলীল ভাবেই।

মুলতঃ যোগাযোগ প্রযুক্তির জন্য পরিচিত হলেও তাঁর কর্মকান্ড কেবল এই জগতেই সীমিত নয়। সবার সাথে দূরত্ব ঘোচাতে তিনি অবিরাম কাজ করে যাচ্ছেন তিনি।

এমনি একটি ঘটনা, গতশনিবার সিরাজগঞ্জে অপহরনের শিকার হন একজন যুবক। অপহরনকারীরা যুবকের ব্যবহৃত মোবাইল ফোন থেকে বাড়ির লোকজনকে ফোন করে দাবী করেন আট লাখ টাকা। মুহুর্তেই দিশেহারা হয়ে পড়েন পরিবারের সবাই। উপায়ন্তর না পেয়ে অসহায় পরিবারটি থেকে অপহরনের শিকার যুবকের ছোট বোন গতকাল রোববার ফোন করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারের ব্যক্তিগত মোবাইলে। কান্নায় ভেঙ্গে পড়া মেয়েটি মন্ত্রীকে জানান তাদের অসহায়ত্বের কথা।

মেয়েটিকে সান্ত্বনা দিয়ে পরমুহুর্তেই এ ঘটনা সাইবার ক্রাইম বিভাগকে জানিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দিকনির্দেশনা দেন মন্ত্রী মহোদয়। একইসাথে এঘটনায় সাইবার ক্রাইম বিভাগের অভিযান ও তৎপরতার খবর নিতে থাকেন কিছুক্ষন কিছুক্ষন পরপরই । এদিকে মন্ত্রীর দিকনির্দেশনা পেয়েই অপহরনের শিকার যুবককে উদ্ধারে সিরাজগঞ্জের পুলিশ সুপারের সহায়তায় মাঠে নেমে পড়েন সাইবার ক্রাইম বিভাগ। রোববারই প্রাথমিকভাবে অপহরনকারীদের অবস্থান শনাক্ত করতে পারলেও স্থান বদল করে অপহরনকারীরা। এরপর প্রযুক্তির উন্নততর ব্যবস্থার মাধ্যমে আজ সোমবার উদ্ধার হয় অপহরনের শিকার যুবক।

উদ্ধার হবার পর যুবকের পরিবার থেকে কৃতজ্ঞ প্রকাশ করে ফোন করা হয় ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারকে। পুরো ঘটনা ফেসবুকে নিজের আইডিতে প্রকাশ করে মন্ত্রী মহোদয় লিখেন,

‘গতকাল রোববার সকালে হঠাৎ একটি অপরিচিত নাম্বার থেকে ফোন। একটি মেয়ের গলা। কান্নায় ভেজা গলাতে মেয়েটি প্রথমে আমার পরিচয় নিশ্চিত করে জানালো যে তার বাড়ি সিরাজগঞ্জে। তার ভাই বিটিসিএল এ চাকরি করে। একদিন আগে সে অপহৃত হয়েছে। অপহরণকারী তার ভাই এর ফোন থেকে ৮ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করছে। আমি আমাদের সাইবার ক্রাইম বিভাগকে অপহৃতের পরিচয়সহ মোবাইল নাম্বারটা পাঠালাম। ওরা কালকেই তার অবস্থান মীর্জাপুরে নিশ্চিত করলো। একটু পরে আবার জানালো ওরা জায়গা বদল করছে। সিরাজগঞ্জের এসপিও যুক্ত হলেন এতে। একটু আগে মেয়েটি আনন্দের কান্নায় জানালো তার ভাইকে পাওয়া গেছে। আমাদের পুলিশ বাহিনী প্রযুক্তি যে দক্ষতার সাথে ব্যবহার করতে পারে এটি তার আরও একটি প্রমাণ।’

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারের এই স্ট্যাটাসে অনেকেই তার এই তৎপরতায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে ধন্যবাদ জানান। একইসাথে ঘটনার শিকার ঐ পরিবারটির পরবর্তি সময়ে নিরাপত্তার দাবীও করেন।

Loading...