বগুড়ার শেরপুরে স্কুলছাত্রী ও কিশোরের আত্মহত্যা

৫:৫৭ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, নভেম্বর ৫, ২০১৯ দেশের খবর, রাজশাহী

সাখাওয়াত হোসেন জুম্মা, শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি: বগুড়ার শেরপুর উপজেলায় গত দুই দিনে গলায় ফাঁস দিয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ফাতেমা খাতুন (১২) ও কিশোর আশরাফুল ইসলাম (১৪) নামে দুজন আত্মহত্যা করেছে।

জানা গেছে, উপজেলার গাড়ীদহ মডেল ইউনিয়নের জুয়ানপুর মধ্যেপাড়া গ্রামের নুর হোসেনের মেয়ে মজিবর রহমান মজনু বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী ফাতেমা খাতুন মঙ্গলবার সকালে লাল রঙের জামা পড়ে স্কুলে যাচ্ছিল। এ সময় তার পিতা নুর হোসেন তাকে লাল জামা বাদে অন্য জামা পড়ে স্কুলে যেতে বলে।

এতে অভিমান করে থাকে ওই স্কুল ছাত্রী ওই দিন দুপুর ২টার দিকে নিজ শয়নকক্ষে তীরের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। দীর্ঘ সময় ওই ছাত্রী ফাতেমার কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে পরিবারের সদস্যরা ঘরের বাইরে থেকে ডাকাডাকি করার একপর্যায়ে তার মা ঘরের ভিতর গিয়ে দেখেন তীরের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় ঝুলছে। খবর পেয়ে পুলিশের শেরপুর সার্কেল এর অতিরিক্ত গাজিউর রহমান, থানার অফিসার ইনচার্জ হুমায়ুন কবীর, পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত বুলবুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

অন্যদিকে শেরপুর উপজেলার মির্জাপুর ইউনিয়নের বিরইল গ্রামের গার্মেন্টকর্মী খয়বর ইসলামের ছেলে আশরাফুল ইসলাম নিজ বাড়িতে দাদির সঙ্গে থেকে পার্শ্ববর্তী একটি ইট ভাটায় শ্রমিকের কাজ করতো। মোবাইল ফোন কিনে না দেওয়ায় গত ৪ নভেম্বও সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সে তার নিজ শয়ন কক্ষে গলায় গামছা পেচিঁয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

খবর পেয়ে শেরপুর থানা পুলিশ তার লাশ উদ্ধার করে। আত্মহত্যার সঠিক কারণ জানা না গেলেও পারিবারিক কলহের জের ধরে সে আত্মহত্যা করতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হুমায়ুন কবীর জানান, পৃথক ঘটনায় থানায় অস্বাভাবিক মৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।

Loading...