মাদারীপুরে মাদ্রাসার ছাত্র নিহতের ঘটনায় থানায় মামলা, প্রধান আসামীসহ গ্রেপ্তার ৩

৬:২১ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, নভেম্বর ৮, ২০১৯ ঢাকা
Madaripur

মেহেদী হাসান সোহাগ, স্টাফ রিপোর্টার-মাদারীপুর  :মাদারীপুর সদর উপজেলার গাছাবাড়ীয়া জামিয়া কারিমিয়া কওমী মাদ্রাসার ছাত্রকে টাকা চুরির অভিযোগে নির্যাতন করে মুখে বিষ ঢেলে মারার ঘটনায় থানায় মামলায়  প্রধান আসামীসহ গ্রেপ্তার ৩জন।

মামলা এজাহার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে,  গাছাবাড়ীয়া জামিয়া কারিমিয়া মাদ্রাসার ২য় শ্রেণির ছাত্র হাসিবকে নির্যাতনের পর হত্যার ঘটনায় নিহতের বাবা আনোয়ার মাতুব্বর বাদী হয়ে শুক্রবার সকালে সদর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলায় মাদ্রাসার শিক্ষক ইউসুফ আলী মোল্লাকে প্রধান আসামী এবং আবুল বাসার ও ইলিয়াছ মোল্লা কে আসামি করে এ মামলা করেন। এবং এরপর তিনজন আসামীকে গ্রেপ্তার  দেখিয়ে দুপুরে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে সদর থানা পুলিশ।

আটককৃত ইলিয়াছ মোল্লা ও ইউসুফ মোল্লার পেয়ারপুর ইউনিয়নের গাছবাড়িয়া এলাকার বেলায়েত মোল্লার ছেলে এবং  আবুল বাসার  রাজৈর উপজেলার মোল্লাকান্দি গ্রামের আঃ মান্নান খানের ছেলে।

জানা যায়, হাসিব নিহতের ঘটনার দিন আবুল বাসার কে আটক করলেও পলাতক থাকে ইলিয়াছ ও ইউসুফ কিন্ত বৃহস্পতিবার রাতে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাদ্রাসা কমিটি ও শিক্ষকদের থানা আসতে বলে, এরপর রাতে জিজ্ঞিাসাবাদের জন্য ইলিয়াছ ও ইউসুফ কে থানা রাখা হয় শুক্রবার সকালে নিহত হাসিবের বাবা  মামলা করলে ইলিয়াছ ও  ইউসুফকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে প্রেরণ করে।

ইলিয়াছ ও ইউসুফ মোল্লার ভাই ইসমাইল মোল্লা জানান,  আমার ভাইরা নির্দোষ,  আমি চাই পুলিশ সঠিক তদন্তের মাধ্যমে সঠিক বিষয় তুলে ধরবে আর ইনশাহআল্লাহ আমার ভাইরাসহ মাদ্রাসার শিক্ষক মুক্তি পাবে।

মামলার বাদী নিহত হাসিবের বাবা আনোয়ার মাতুব্বর জানান, আমি প্রশাসনের কাজে খুশি, আজ তিনজন আসামীকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠিয়েছে।  আশা রাখি আদালতের মাধ্যমে সঠিক বিচার পাবো।

এ ব্যাপারে মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাওগাতুল আলম বলেন মাদ্রাসার ছাত্র নিহতের ঘটনায় মামলায় তিন জন আসামীদের গ্রেপ্তার করে জেলা হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

উল্লেখ গত বুধবার সদর উপজেলার পেয়ারপুর ইউনিয়নের গাছাবাড়ীয়া জামিয়া কারিমিয়া মাদ্রাসের ২য় শ্রেণীর ছাত্র হাসিব ৫শত টাকার চুরি অভিযোগে গত রোববার ঐ মাদ্রসার শিক্ষক ইউসুফ মোল্লা শারিরিক নির্যাতন করলে হাসিব মাদ্রাসা থেকে পালিয়ে তার নিজ বাড়ী চলে গেলে বুধবার সকালে তার বাবা-মা পুনরায় মাদ্রাসায় দিয়ে গেলে আবারও  হাসিবকে মারাত্মকভাবে পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করে মাদ্রাসার শিক্ষকরা। বিকালে হাসিবের শারীরিক অবস্থা খারাপ হলে কয়েকজন শিক্ষক নির্যাতনে কথা ধামাচাপা দিতে হাসিফের মুখে বিষ (কিটনাশক) ঢেলে হাসপাতালে নিয়ে আসে। হাসপাতালে নিয়ে আসার কিছু সময় পরে সন্ধ্যায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এসময় হাসপাতালে নিয়ে আসা সকল মাদ্রাসার শিক্ষক পালিয়ে গেলেও মো. আবুল বাসার নামে একজনের কথায় সন্দেহ হলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

Loading...