টাকা নিয়ে দ্বন্দ্ব, স্ত্রীকে হত্যার পর ফাঁসিতে ঝুললেন স্বামী

৫:১৯ অপরাহ্ণ | সোমবার, নভেম্বর ১১, ২০১৯ দেশের খবর, রংপুর

সাইফুল ইসলাম মুকুল, রংপুর প্রতিনিধি- রংপুরের পীরগাছায় তাসলিমা আক্তার লুনি (২৫) নামে এক এনজিও কর্মীকে কুপিয়ে হত্যা করে স্বামী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আজ সোমবার দুপুরে উপজেলার চৌধুরাণী বাজারস্থ ব্র্যাকের শাখা অফিসে ঘটনাটি ঘটে।

নিহত এনজিও কর্মী তাসলিমা উপজেলার কৈকুড়ী ইউনিয়নের সুবিদ গ্রামের তোজাম্মেল হকের মেয়ে ও ব্র্যাকের চৌধুরাণী শাখার হিসাব রক্ষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। গলায় ফাঁস দিয়ে নিহত আব্দুল্লাহ আল মাসুদ স্বপন গাইবান্ধা সদর উপজেলার বল্লমঝাড় ইউনিয়নের রঘুনাথ গ্রামের শামছুল আলম মাস্টারের ছেলে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, এনজিও কর্মী তাসলিমা আক্তার লুনির সঙ্গে আব্দুল্লাহ আল মাসুদ স্বপনের বিয়ে হয়। তাদের দুজনেই এটি দ্বিতীয় বিয়ে। বিয়ের তিন বছর পর মাসুদ প্রবাসে থাকাকালীন সময়ে আয়ের সম্পন্ন অর্থ স্ত্রী রুনির একাউন্টে জমা রাখেন। গত চার মাস আগে স্বপন বাড়িতে ফিরে আসলে ওই অর্থ নিয়ে দুজনের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এরই জের ধরে স্বপন সোমবার সকালে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে রুনির কর্মস্থল ব্র্যাক অফিসে উপস্থিত হন।

এ সময় ওই অফিসের অন্যান্য কর্মীরা মাঠে থাকার সুযোগে রুনির ওপর চাইনিজ কুড়াল দিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। এতে রুনির মৃত্যু নিশ্চিত ভেবে স্বপন ওই অফিসে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে। পরে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এক সহকর্মী অফিসে ফিরে বিষয়টি দেখতে পেয়ে চিৎকার শুরু করে। তার চিৎকারে লোকজন ছুটে এসে রুনিকে উদ্ধার করে রংপুর মেডিক্যাল কলেজে পাঠালে পথে তার মৃত্যু হয়।

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে থানায় পাঠানো প্রস্তুতি নেয়। ঘটনাস্থলে উপস্থিত পীরগাছা থানার এসআই মাসুদ রানা বলেন, ফাঁসে ঝুলে থাকা অবস্থায় চৌধুরাণী ব্র্যাক অফিসে স্বপন নামে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

পীরগাছা থানার ওসি রেজাউল করিম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মাসুদের সুরতহাল রিপোর্ট করে মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। রুনির লাশ রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রয়েছে।

Loading...