সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অপসারণের পর ফেসবুকে যা বললেন তুরিন আফরোজ

৬:৫৭ অপরাহ্ণ | সোমবার, নভেম্বর ১১, ২০১৯ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটরের পদ থেকে ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজকে অপসারণ করেছে সরকার। অপসারণের আদেশ সম্বলিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে তুরিন আফরোজকে “শৃঙ্খলা ও পেশাগত আচরণ ভঙ্গ এবং গুরুতর অসদাচরণের” দায়ে অপসারণ করা হয়েছে।

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় আজ সোমবার এই প্রজ্ঞাপন জারি করে। পরে দুপুরে ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজের অপসারণ বিষয়ে সাংবাদিকদের ব্যাখ্যা দেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতেই তাকে এই পদ থেকে অপসারণ করেছি।

এদিকে নিজের অপসারণ নিয়ে এবার মুখ খুললেন ব্যারিস্টার তুরিন আফরোজ। সোমবার বিকালে নিজের ফেসবুক পেজে এ নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি। তার স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য হুবহু তলে ধরা হল-

‘জীবনের অনেক সত্য অপ্রকাশিত থেকে যায়। আমি ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর হিসেবে থাকি বা না থাকি, আপোষহীনভাবে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধের বিচার চাই। এই বিচারের দাবীতে অনেক আন্দোলন আমি করেছি, রাস্তায় মার পর্যন্ত খেয়েছি। আমার এবং আমার মেয়ের জীবনকে ঝুঁকির মুখে ফেলেছি। তবে আপনাদের ভালবাসা পেয়েছি, দোয়া, শ্রদ্ধা ও সম্মান পেয়েছি। আপনাদের সকলের কাছে আমার ও আমার মেয়ের কৃতজ্ঞতা রইল। শুধু জানবেন, আমি শত ভাগ সততা দিয়ে প্রসিকিউটর হিসেবে আমার দায়িত্ব পালন করেছি। জয় বাংলা! জয় বঙ্গবন্ধু!’

উল্লেখ্য, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক (ডিজি) মুহাম্মদ ওয়াহিদুল হকের বিরুদ্ধে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধ মামলা পরিচালনার দায়িত্বে ছিলেন প্রসিকিউটর তুরিন আফরোজ।

অভিযোগ ওঠে, মামলা পরিচালনার দায়িত্ব পাওয়ার পর ২০১৭ সালের নভেম্বরে ওয়াহিদুল হককে ফোন করে কথা বলেন তুরিন। পরে পরিচয় গোপন করে ঢাকার একটি হোটেলে তার সঙ্গে দেখাও করেন।

ওই অভিযোগ ওঠার পর প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে ওয়াহিদুল ও তুরিনের কথোপকথনের রেকর্ড ও বৈঠকের অডিওরেকর্ডসহ যাবতীয় ‘তথ্য-প্রমাণ’ আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। ট্রাইব্যুনালের সব মামলা থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় তুরিনকে।

সোমবার আইন মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে তুরিনের নিয়োগ বাতিল করা হয়। এতে তুরিনের ‘শৃঙ্খলা ও পেশাগত আচরণ ভঙ্গ এবং গুরুতর অসদাচরণের’ কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

Loading...