‘জেলায় জেলায় পেঁয়াজ পাঠানো হবে’- প্রধানমন্ত্রী

১২:২১ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, নভেম্বর ১৫, ২০১৯ জাতীয়
pm

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ বিদেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘৫০ হাজার মেট্রিন টন পেঁয়াজ আমদানির এলসি খোলা হয়েছে। এই পেঁয়াজ চলে এলে টিসিবির মাধ্যমে তা জেলায় জেলায় পাঠানো হবে।’

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদের পঞ্চম অধিবেশনের সমাপ্তি অধিবেশনে বক্তব্য দিতে গিয়ে একথা বলেন তিনি। এর আগে পেঁয়াজ নিয়ে কথা বলেন মুজিবুল হক চুন্নু।

তার বক্তব্যের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের এক সংসদ সদস্য বলেছেন- ইন্ডিয়ায় নাকি পেঁয়াজের কেজি আট টাকা। মাননীয় স্পিকার এটা ইন্ডিয়ার একটি স্টেটে। অন্য কোনো স্টেটে তারা সেই পেঁয়াজ যেতে দিচ্ছে না। অন্যান্য জায়গায় ১০০ টাকা রুপি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাদেরই পেঁয়াজের অভাব এবং তারা আমদানি করছে। তারপরও আমার অনুরোধে যেসব এলসি খোলা হয়েছিল সে পেঁয়াজগুলো আমরা আনতে পেরেছিলাম। কিন্তু আমাদের দেশে পেঁয়াজের দাম বাড়ছে। পেঁয়াজ কিন্তু আছে তা দেখা যাচ্ছে। আমরা টানা অভিযান চালিয়েছি। দেখা যাচ্ছে পেঁয়াজ পচে যাচ্ছে। কিন্তু পেঁয়াজ বাজারে ছাড়ছে না। এ জন্য আমরা টিসিবির মাধ্যমে বিভিন্ন অঞ্চলে পেঁয়াজ বিক্রি করছি। পাশাপাশি আমরা বিদেশ যেমন তুরস্ক ও মিশর থেকে পেঁয়াজ আমদানি শুরু করেছি। সেখানে আমাদের কর্মকর্তারা চলে গেছেন।

তিনি বলেন, আমি নির্দেশ দিয়েছি আসার সাথে সাথেই জেলায় জেলায় ট্রাকে করে চলে যাবে। এ ব্যাপারে আমরা যথেষ্ট সচেতন আছি যাতে এই সমস্যাটা না হয়।

দেশে একটা সিজনে পেঁয়াজ উৎপন্ন হয় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমাদের গবেষকরা বারোমাসী পেঁয়াজের বীজ উদ্ভাবন করেছেন। এটা ভবিষ্যতে আমরা বাজারজাত করবো। তখন কারও মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে না। আমাদের নিজেদের চাহিদামতো উৎপাদন করতে পারবো।’

খাদ্যে ভেজাল বিষয়ে বিরোধী দলের নেতার বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, ‘আসলে যতই বলি, মানুষের চরিত্র বদলায় না। তবে সরকার অভিযান চালাচ্ছে বলেই মানুষ এই ভেজালের বিষয়টি জানতে পারছেন। কেবল খাদ্যে কেন, কসমেটিকসহ অনেক কিছু নকল করে ফেলছে। অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত আছে এবং এটা থাকবে। ভেজালবিরোধী অভিযান অব্যাহত থাকবে। তবে ভেজাল খেয়ে খেয়ে আমরা বোধ হয় অভ্যস্ত হয়ে গেছি। ভেজাল খাচ্ছি, আবার আমরা বেঁচেও আছি; আমাদের গড় আয়ুও বাড়ছে।’ পণ্য পরীক্ষার জন্য বন্দর এলাকায় বিএসটিআই ল্যাব তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে বলেও তিনি জানান।

Loading...