• আজ ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

আবরারের মায়ের সঙ্গে দুপুরের খাবার খেলেন বুয়েটের শিক্ষার্থীরা

১:১৭ অপরাহ্ণ | শনিবার, নভেম্বর ১৬, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- ছাত্রলীগের পিটুনিতে নিহত বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদের মায়ের সঙ্গে দেখা করে তার সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন বুয়েটের কিছু শিক্ষার্থী।

জানা যায়, ফাহাদ নিহত হওয়ার পর থেকে তার মা রোকেয়া খাতুনের আহাজারি এখনো থামেনি। ঠিকমতো খাওয়া-দাওয়া করেন না, সবকিছুই যেন তার এলোমেলো। আবরারের মা’র মন একটু ভালো করতেই কুষ্টিয়া গিয়েছে বুয়েটের বন্ধুরা। অংশ নিয়েছেন দুপুরের খাবার ও মসজিদে আয়োজিত দোয়া মাহফিলে।

ফেইসবুকে বুয়েটিয়ান নামে পেজের পোস্ট থেকে জানা যায়, আবরারের মাকে সান্ত্বনা দিতে শুক্রবার কুষ্টিয়া যায় বুয়েটের কিছু শিক্ষার্থী। তারা সেখানে আবরারের মায়ের সঙ্গে দুপুরের খাবারে অংশ নেন এবং মসজিদে আয়োজিত দোয়া মাহফিলে শামিল হন।

বিষয়টি নিয়ে ফেসবুকের বুয়েটিয়ান পেজে পোস্ট করেছেন তারা। লিখেছেন, ‌‌‘অনেকদিন হচ্ছে, সন্তান হারানোর শোকে আমাদের মা ঠিকমত খেতে পারছেন না। আজ কুষ্টিয়ায় আমাদের প্রিয় বন্ধু-ভাই আবরারের গ্রামের বাড়িতে আমাদের প্রিয় দুঃখিনী মাকে নিয়ে একসাথে দুপুরের খাবার খেলাম। জানি, আমরা কেউই আবরারকে ফিরিয়ে দিতে পারবো না, পারবো না প্রিয় মায়ের সন্তান হারানোর দুঃখ ভুলিয়ে দিতে। কিন্তু আমরা সবাই সব সময় আবরার হয়ে থাকতে চাই আমাদের মায়ের সাথে।’

পোস্টের নিচে ডালিয়া আফরোজ নামে একজন লিখেছেন, মহান আল্লাহ তোমাদের মঙ্গল করুন।আর এই দুঃখীনী মাকে শোক সহ্য করার ক্ষমতা দিন।জানিনা কোন দিন উনি আর শান্তি পাবেন কিনা। আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করি জান্নাতে গিয়ে প্রিয় সন্তানের সাথে দেখা হয় যেন উনার।

সোহরাব হোসেন লিখেছেন, পারলে নিয়মিত যোগাযোগ করবেন ভাই। জানি এতে তাঁর সন্তান হারানোর ব্যাথা কমবেনা, কিন্তু একটু হলেও ভালো লাগবে ওনার।

মোঃ শাহরিয়ার সাগরের বক্তব্য, অবশ্যই খুবই প্রশংসনীয়। সবাইকে আল্লাহ সুস্থ রাখুক। আর শহীদ আবরারের মা আমাদের ও মা তাকে ও মহান আল্লাহ পাক সুস্থ রাখুক তার কষ্টগুলোকে আল্লাহ একটু একটু করে কমিয়ে দিক। মহান আল্লাহ রক্ষা করুক এই পরিবার টিকে। দোয়া,সালাম ও ভালোবাসা সবার জন্যে।

একজন লিখেছেন, হাজারো আবরারকে উনি পেয়েছেন, আল্লাহ আপনাদের ভাল করবেন। আবরাররা মরেনা, আবরাররা ইতিহাস হয়ে রয়, হয়ে রয় সাক্ষী হয়ে যুগযুগ ধরে।

Loading...