শ্রীলংকার প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন রাজাপাকসে

৪:০৯ অপরাহ্ণ | রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯ আন্তর্জাতিক
raja

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ শ্রীলংকায় শনিবার (১৬ নভেম্বর) অষ্টমবারের মতো প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে ভোটে এগিয়ে আছেন গোতাবায়া রাজপাকসে। রাজাপাকসে নির্বাচনের জয় দাবি করেছেন এবং তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী সাজিথ প্রেমাদাসা পরাজয় স্বীকার করে নিয়েছেন, কিন্তু সরকারিভাবে ফলাফল নিশ্চিত করা হয়নি বলে জানিয়েছে বিবিসি।

শ্রীলঙ্কার নির্বাচনী কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নির্বাচনে ৮০ শতাংশ ভোটার ভোট দিয়েছে। এতে ৪৯.৬ শতাংশ ভোট পেয়েছেন ৭০ বছর বয়সী গোতাবায়া রাজাপাকসে। চীনপন্থী গোতাবায়া শ্রীলঙ্কা পিপলস ফ্রন্ট’র (এসএলপিপি) প্রধান হিসেবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। ২০০৫ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে মাহিন্দা রাজাপাকসের সময় গোতাবায়া দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১ কোটি ৬০ লাখ ভোটারের জন্য ২২টি নির্বাচনী জেলায় খোলা হয় প্রায় ১৩ হাজার ভোট কেন্দ্র।

চূড়ান্ত গণনা শেষে রাজাপাকসে ৫৩ থেকে ৫৪ শতাংশ ভোট পাওয়ার আশা করছেন বলে তার মুখপাত্র জানিয়েছেন। তার এ মন্তব্যের কিছুক্ষণ পরই প্রকাশ্যে পরাজয় মেনে নেন সাজিথ প্রেমাদাসা।

রোববার স্থানীয় সময় বিকাল ৪টায় সরকারিভাবে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার আশা করছেন বলে বিবিসিকে জানিয়েছেন শ্রীলঙ্কার নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান।

১০ বছর আগে গোটবায়া রাজাপাকসের ভাই মাহিন্দা রাজাপাকসে শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট ছিলেন। ওই সময় শ্রীলঙ্কার প্রতিরক্ষামন্ত্রী ছিলেন সামরিক বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট কর্নেল গোটাবায়া। তাদের সময়েই তামিল বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সামরিক পরাজয় ঘটার মধ্যে দিয়ে বহু বছর ধরে চলা রক্তাক্ত গৃহযুদ্ধের অবসান হয়।

তামিল বিদ্রোহীদের পরাজিত করায় সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেন গোটাবায়া রাজাপাকসে। মহিন্দা রাজাপাকসে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর গোটাবায়া তাদের দল পিপলস ফ্রন্ট পার্টির প্রধান হিসেবে আছেন। নির্বাচনী প্রচারণায় তিনি শক্তিশালী নেতৃত্বের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মোট ৩৫ জন প্রার্থী ছিলেন। ২০০৯ সালে গৃহযুদ্ধ শেষ হওয়ার পর এটি শ্রীলঙ্কার তৃতীয় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন।

Loading...