মাত্র ৭৫ হাজার টাকা হলে বাঁচতে পারে অসুস্থ সেহের বানু!

২:৫৪ অপরাহ্ণ | সোমবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৯ দেশের খবর

ফয়সাল শামীম, ষ্টাফ রিপোর্টার: সেহের বানু একপ্রকার বুঝতেই পেরেছেন তার সময় প্রায় শেষ! এবার পৃথীবির মায়া ত্যাগ করে সন্তানদের অনাথ করে তাকে চলে যেতে হবে না ফেরার দেশে!

অবশ্য মাসুম বাচ্চারা অনাথ হবে এটা কিছুতেই মানতে পারছেন না সেহের বানু। তাই সারাদিন বাচ্চা তিনটিকে বুকে জড়িয়ে কাঁদে আর আল্লাহপাকের কাছে প্রার্থনা করে বলে তার চিকিৎসার জন্য আল্লাহপাক যদি কাউকে পাঠাতেন ?

সেহের বানুর করুন পরিণতি দেখে তার সাথে কাঁদছে একটি পুরো গ্রাম! কারন গ্রামটির সকলে বাচ্চা অবুঝ বাচ্চা ৩টির কান্না দেখে যেনো বাকরুদ্ধ।

বলছি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার দিগদারী গ্রামের হতদরিদ্র সেহের বানুর কথা।

সেহের বানুর পাকস্থলির নলীর স্পর্শকাতর স্থানে টিউমার, ও ইউট্রাসের টিউমারের সমস্যায় ভুগছেন। বর্তমানে তার রোগটি ক্যান্সারের ঝুঁকির পর্যায়ে আছে। এছাড়া পেটের অসহ্য যন্ত্রনায় সেহের বানু কিছুই খেতে পারে না।

তাছাড়া পেটের একদিকে ফুলে গেছে। যখন সেহের বানুর ব্যাথা উঠে তখন তার চিৎকার গ্রামের শেষমাথা পযন্ত পৌঁছায়!

সেহের বানুর করুন পরিণতি দেখে গ্রামের মানুষ সকলে টাকা সংগ্রহ করে এবং সেহের বানুর শেষ সম্বল বিক্রি করে তাকে রংপুরে ডাক্তার দেখায়। কিন্তু ডাক্তার ৩ দিন পরীক্ষা নীরিক্ষা শেষে ও সেহের বানের শরীরের মাংসখন্ড ঢাকায় পাঠানোর পর তার বায়ফসি রির্পোট দেখে সাফ জানিয়ে দেন টিউমারটি খুব স্পর্শকাতর জায়গায়।

খুব দ্রুতই তার অপারেশন করতে হবে। এছাড়া খাদ্যনালী চিকন হয়ে আসায় সেখানেও একটি অপারেশনের প্রয়োজন হবে। দ্রুত সময়ে অপারেশন না করলে সেটি ক্যান্সারে রুপ নেবে।

ডাক্তার আরও বলেন অপারেশন করতে মোট ৭৫ হাজার টাকার প্রয়োজন হবে। যেখানে সেহের বানুর দু বেলা দু মুঠো ভাত জোগাড় করাই মুশকিল সেখানে ৭৫ হাজার টাকা তো স্বপ্নের মতো ব্যাপার! তাই ডাক্তারের কাছ থেকে ফিরে এখন সেহের বানু বাঁচার আশা একপ্রকার ছেড়ে দিয়েছেন।

সেহের বানুর সাথে কথা হলে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, খুব কষ্ট হয়। অসহ্য যন্ত্রনা সহ্য করবার পাইনা। মুই জানং অপারেশন না করলে মুই বাঁচপার নোয়াং। কিন্তু ৭৫ হাজার টাকা মোক কাই দিবে? মুই মোর ছওয়া (বাচ্চা) ৩ টার জন্য বাঁচপার চাং। মোক তোমরা বাঁচান।

প্রতিবেদকের দু’টি কথাঃ একটি গ্রামের মানুষ সবাই চায় বাচ্চা ৩টির মায়ের চিকিৎসা হউক এবং তাদের মা সুস্থ হয়ে উঠুক। আমি মহিলাটিকে নিয়ে আগামী আমি বর্তমানে রংপুরে ক্লিনিকে আছি। আমি নিজে থেকে চিকিৎসাটা শুরু করিয়েছি। তবে তার চিকিৎসা তখনই শেষ করতে পারবো যখন সমাজের হৃদয়বান বৃত্তবানরা তার পাশে দাড়াবেন। তাই আমি সমাজের হৃদয়বান বৃত্তবানদের সেহের বানকে বাঁচাতে সহযোগিতার হাত বাড়ানোর অনুরোধ জানাই।

আরও তথ্য ও ইমো, ভাইবার, হোয়াটর্সএপে ভিডিও কলে সেহেরবানুর সাথে কথা বলতে আমাদের ষ্টাফ রিপোর্টার প্রভাষক, ফয়সাল শামীম-০১৭১৩২০০০৯১

আপডেট:রোগীর অপারেশন হয়েছে। এখন আল্লাহ রহমতে তিনি ভাল আছেন।

Loading...