রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে হারেনি আর্জেন্টিনা-উরুগুয়ে কেউই

১০:৩৯ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৯, ২০১৯ খেলা

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক- চির প্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিলের বিপক্ষে তার করা একমাত্র গোলেই জয় পেয়েছিল আর্জেন্টিনা। দিন তিনেক পরে আবারও আর্জেন্টিনার রক্ষাকর্তা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন তিনি। তবে এবার আর জেতাতে পারেননি। শেষ মুহূর্তের গোলে দলকে ড্র এনে দিয়েছেন লিওনেল মেসি।

অনেক বিতর্ক ও সমালোচনার পরও ইসরায়েলের সাবেক রাজধানী তেলআবিবের ব্লুমফিল্ড স্টেডিয়ামে মাঠে গড়িয়েছে আর্জেন্টিনা ও উরুগুয়ের মধ্যকার প্রীতি ফুটবল ম্যাচ। যেখানে ধ্রুপদী প্রদর্শনীতে জিতেছে ফুটবল, হারেনি আর্জেন্টিনা-উরুগুয়ের কেউই। দুই দলের পাল্লা দিয়ে লড়াই করার ম্যাচে দারুণ এক অভিজ্ঞতাই হয়েছে উপস্থিত দর্শকদের।

যেখানে দুইবার পিছিয়ে পড়েও হার মানেনি আর্জেন্টিনা। গোল শোধ করে লড়াইয়ে ফিরেছে দুইবারই। শেষপর্যন্ত তাদের আক্ষেপ হয়ে থেকেছে একদম শেষ দিকে গোল মিসের হতাশা। যার ফলে ২-২ গোলের ড্র নিয়েই নিজেদের আন্তর্জাতিক বিরতি শেষ হলো আলবিসেলেস্তেদের।

প্রীতি ম্যাচ হলেও দুই দলই নিজেদের সেরা একাদশটাই মাঠে নামিয়েছিল। এদিন প্রথম থেকেই উরুগুয়ের উপর প্রভাব বিস্তার করে খেলেছে আর্জেন্টিনা। বলের দখল, নান্দনিক পাস, লক্ষ্যে ছুটে চলা সবই ছিলো মেসিদের খেলায়। তবে এগিয়ে যায় উরুগুয়েই। ৩৪ মিনিটে গোল করে দলকে এগিয়ে দেন এডিনসন কাভানি। অবশ্য প্রথমার্ধ শেষের আগেই সেই গোল শোধ করার ভালো সুযোগও পেয়েছিল আর্জেন্টিনা। মেসির সঙ্গে নেমে ভালোই খেলছিলেন দিবালা। কিন্তু মার্কোস আকুনিয়ার ক্রস গোলের সামনে থেকেও প্রথম দফায় পা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হন, দ্বিতীয় চেষ্টায় অবশ্য বল জালে জড়িয়েছিলেন, কিন্তু এর আগেই একবার বলে হাত লেগেছিল দিবালার, তাই সেই গোল আর পাওয়া হয়নি তার।

৬৩ মিনিটে সমতায় ফেরে আর্জেন্টিনা। মেসির ফ্রি কিকে মাথা ছুঁয়ে গোল আদায় করেন ম্যান সিটি তারকা সার্জিও এগুয়েরো। আর্জেন্টিনার স্বস্তি অবশ্য বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। আরেকটি ফ্রি-কিক থেকে আবার পিছিয়ে পড়েন মেসিরা। সুয়ারেজেই আর্জেন্টিনার বক্সের ঠিক বাইরে ফ্রি-কিক আদায় করে নিয়েছিলেন। এর পর সরাসরি ফ্রি-কিক থেকেই গোল করে দ্বিতীয়বারের মতো দলকে এগিয়ে নেন সুয়ারেজ।

৯০ মিনিটে আগুয়েরোর হেড কাম্পানা আবার ঠেকিয়ে দিলে হারটাই অনুমিত মনে হচ্ছিল আর্জেন্টিনার জন্য। তবে এর দুই মিনিট পরই মার্টিনেজের অবদান থাকল আর্জেন্টিনার ফেরায়। তাতে নেতৃত্ব দিলেন মেসি। আগের ম্যাচে পেনাল্টি মিস করলেও পরে বল জড়িয়েছিলেন জালে। এবার কাম্পানা আগে থেকেই নিজের বামদিকে ঝাঁপ দিয়ে ফেলেছিলেন। মেসির গড়িয়ে মারা শট তাই কোনো বাধা পায়নি গোল পর্যন্ত পৌঁছাতে।

Loading...