ইবির অধ্যাপক ইয়াছিন আলীর অকাল মৃত্যুতে প্রশাসনের শোক

১১:২০ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৯, ২০১৯ শিক্ষাঙ্গন

রায়হান মাহবুব, ইবি প্রতিনিধি- ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) বাংলা বিভাগের জেষ্ঠ্য অধ্যাপক ইয়াসিন আলী ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি অইন্না ইলাইহি রাজিউন)। সোমবার বিকেল পাঁচটার দিকে ঢাকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

মরহুমের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন, শিক্ষক সমিতি, শাপলা ফোরামসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন।

সূত্র মতে, অধ্যাপক ইয়াছিন আলী গত ৭ অক্টোবর ব্রেইনস্ট্রোক ও হার্টস্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখান তাঁর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে পরবর্তীতে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়। সোমবার সকাল পর্যন্ত তিনি অনেকটা সুস্থ ছিলেন বলে জানা যায়। পরে বিকেল পাঁচটার দিকে হঠাৎ রক্তে ইনফেকশন বেড়ে গেলে তিনি ইন্তেকাল করেন।

আজ মঙ্গলবার সকাল সোয়া নয়টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিসির পূর্ব গেটে মরহুমের প্রথম জানাযার নামাজ সম্পন্ন হয়।

এসময় জানাযায় উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সেলিম তাহা। এছাড়াও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এস এম আব্দুল লতিফ, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বাংলা বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. সাইদুর রহমান, শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ, শাপলা ফোরামের নেতৃবৃন্দ, মরহুমের বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্তরের শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক -সাংস্কৃতিক সংগঠনের শিক্ষার্থীরা।

জানা যায়, আজই গ্রামের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জে তাঁকে দ্বিতীয় জানাযা শেষে সমাহিত করা হবে।

এদিকে অধ্যাপক ইয়াসিন আলীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. রাশিদ আসকারী, উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সেলিম তাহা। এছাড়াও ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার, বাংলা বিভাগের সভাপতি, শিক্ষক সমিতির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, শাপলা ফোরামের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক প্রমুখ পৃথক পৃথক শোকবার্তায় শোক প্রকাশ করেছেন। তাঁরা মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তোপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

উল্লেখ্য, অধ্যাপক ইয়াসিন আলী ১৯৬৫ সালে রাজশাহীর চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ থানার রাণীনগর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। প্রখর মেধাবী ও জ্ঞানতাপসী এই শিক্ষক রাজশাহী ক্যাডেট কলেজ থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে ভর্তি হন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে। সেখানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী শেষ করে ১৯৯২ সালে যোগদান করেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে।

তিনি তাঁর দীর্ঘ অধ্যাপনা জীবনে বাংলা বিভাগসহ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্তত দশটি বিভাগে ফোকলার, দর্শন ও মুসলিম দর্শন বিষয়ে পাঠদান করেছেন। আপাদমস্তক এই একাডেমিশিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রশাসনিক পদেও দায়িত্ব পালন করেছেন। সর্বশেষ তিনি ইবি ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের (টিএসসিসি) পরিচালকের দ্বায়িত্ব পালন করেন।

Loading...