• আজ ২৬শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

যশোরে পঞ্চম দিনেও বাস চলাচল বন্ধ, চরম ভোগান্তি

১:০৮ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২১, ২০১৯ খুলনা, দেশের খবর

মহসিন মিলন, বেনাপোল প্রতিনিধি- শ্রমিকদের স্বেচ্ছা কর্মবিরতির নামে অঘোষিত ধর্মঘটের কারণে পঞ্চম দিনেও যশোর অঞ্চলে কোন রুটে বাস চলাচল করছে না। এতে জনসাধারণ চরম ভোগান্তির মধ্যে পড়েছে। তবে শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির আজ ও আগামীকাল দুদিনের মিটিং শেষে বাস চলাচলের সিদ্ধান্ত নেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন শ্রমিক নেতৃবৃন্দ।

যশোর সদর উপজেলার তালবাড়িয়ার রহিম সর্দার ও তার তিন বছরের শিশুকন্যা এবং স্ত্রীসহ আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে যশোর পুরাতন বাস টার্মিনাল এলাকায় দাঁড়িয়ে ছিলেন ঢাকায় যাবেন বলে। তার শিশু কন্যার চিকিৎসার জন্য জরুরীভাবে ঢাকার যেতে হবে। দূরপাল্লাসহ সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় তারা যেতে পারেননি। কথায় কথায় পরিবহন ধর্মঘটের কথা উল্লেখ করে পরিবহন শ্রমিকদের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

ঢাকায় যাওয়ার জন্য বাসস্টান্ডে দাঁড়িয়ে ছিলেন সকিলা বেগম ও নূরজাহান বেগম। কলেজের কাজে তাদেরকে ঢাকা যাওয়া বিশেষ জরুরী। তারা যেতে না পেরে ফিরে যান। তারা জানান, শ্রমিকদের দাবি অন্যায়। তাদের এ অন্যায় দাবি কেউ কখনো মানবে না। আমাদের মত সাধারণ যাত্রীদের অনেক কষ্ট হলেও পরিবহন শ্রমিকদের দাবির মুখে মাথা নত করা ঠিক হবে না।

বাসস্ট্যান্ডে সত্তরোর্দ্ধ হালিমা বেগম ফরিদপুরে যেতে না পেরে ফিরে যান। যাতে দ্রুত বাস চলাচল শুরু হয় তার জন্য তিনি সরকার এবং পরিবহন শ্রমিকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

পরিবহন শ্রমিকরা জানান, নতুন সড়ক আইন সংশোধনসহ ১০ দফা দাবি না মানা পর্যন্ত কেউ আর গাড়ি চালাবে না। ফাঁসির দড়ি নিয়ে কেউ আর গাড়ি চালাতে চায় না।

যশোর জেলা পরিবহন সংস্থা শ্রমিক সমিতির সভাপতি মামুনূর রশিদ বাচ্চু জানান, শ্রমিকরা স্বেচ্ছায় গাড়ি চালানো বন্ধ করে দিয়েছে। কেউ চাপ দেয়নি। শ্রমিক ইউনিয়ন বা ফেডারেশন কোন কর্মসূচি দেয়নি। তারপরও আজ বৃহস্পতিবার ও আগামীকাল শুক্রবার ফেডারেশনের মিটিং আছে। সেখানে আছি। মিটিংয়ে শ্রমিকদের স্বার্থ সংশ্লিষ্টতা দেখা হবে আবার যাত্রী সাধারণের ভোগান্তির বিষয়টি বিবেচনায় আনা হবে।

তবে কবে নাগাদ গাড়ি চলাচল করতে পারে সে বিষয়ে নিশ্চিত করে কিছুই জানাতে পারেনি শ্রমিক নেতা মামুনূর রশিদ বাচ্চু।

Loading...