‘মুক্তিযুদ্ধে ভারতবাসীর অবদান আমরা কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করি’- প্রধানমন্ত্রী

৯:০০ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, নভেম্বর ২২, ২০১৯ স্পট লাইট
hasina

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের জাতির পিতার নেতৃত্বে যে মহান মুক্তিযুদ্ধ করি, সেই মুক্তিযুদ্ধে ভারতবাসীর অবদান আমরা চিরদিন কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ করি। তাই এদেশের মানুষের প্রতি সবসময় আমার কৃতজ্ঞতা জানাই, সকলকে আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা জানাই।

শুক্রবার (২২ নভেম্বর) সন্ধ্যায় কলকাতার পাঁচ তারকা হোটেল তাজ বেঙ্গলে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, আমি যখনই এদেশে আসি আমার খুবই ভালো লাগে। এক কোটি শরণার্থী এখানে আশ্রয় নিয়েছিল এবং সেই সময়ের সব রকম সহযোগিতা পেয়েছিল। এটা আমরা সবসময় মনে রাখি। এই যে আমরা দুটো প্রতিবেশী দেশ সবসময় আমাদের সম্পর্ক চমৎকার এবং এই প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে চমৎকার সম্পর্ক বজায় থাকুক সেটাই আমরা চাই।

ইডেনে পিঙ্ক টেস্ট নিয়ে তিনি বলেন, এই ক্রিকেট খেলায় আমরা এবার হয়ত ভালো করতে পারছি না। ইনশাআল্লাহ আমরা একদিন নিশ্চয়ই ভালো করব।

এর আগে, ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলীর আমন্ত্রণে কলকাতায় বাংলাদেশ-ভারত দ্বিতীয় টেস্ট ম্যাচ দেখতে সকাল ১০টা ৪৫ মিনিটে (বাংলাদেশ সময়) কলকাতায় পৌঁছান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। টেস্ট ভেন্যু ইডেনে শেখ হাসিনাকে অভ্যর্থনা জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও সৌরভ গাঙ্গুলী। বর্ণাঢ্য এ আয়োজনে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকেও আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন বিসিসিআই সভাপতি। কিন্তু, বিশেষ কারণে তিনি আসতে পারছেন না বলে জানিয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো।

সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচটি হচ্ছে দিবারাত্রির, গোলাপি বলে। নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে এই প্রথম দুই দল দিবারাত্রির টেস্ট খেলতে নামবে। দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাঠে গোলাপি বল ও কয়েন ম্যাচ রেফারির হাতে তুলে দেন। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ও ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলী এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

দুপুর ১টা ২৫ মিনিটে শেখ হাসিনা ও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আনুষ্ঠানিকভাবে ইডেন গার্ডেনসের ঐতিহ্যবাহী ঘণ্টা বাজিয়ে দিবারাত্রির টেস্ট ম্যাচ উদ্বোধন করেন।

টেস্টের প্রথম সেশন মাঠে বসেই খেলা উপভোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী। মধ্যাহ্নভোজের পর সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে। রাত ৮টায় ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে শেখ হাসিনার।

অনুষ্ঠান শেষে রাত ১০টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বিশেষ ফ্লাইটে ঢাকার উদ্দেশে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফ্লাইটটি রাত সাড়ে ১১টায় ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছাবে বলে জানানো হয়েছে।

Loading...