সংবাদ শিরোনাম
জীবনসঙ্গিনী খুঁজে নিলেন চাহাল | এবার ১২০০ কোটি রুপি ব্যয়ে আকাশছোঁয়া ‘হনুমানের মূর্তি’ তৈরি হচ্ছে ভারতে | লাদাখ সীমান্তে উত্তেজনা বৃদ্ধি, আবারো চীনা সেনা মোতায়েনের দাবি ভারতের | হাজিদের পাথর নিক্ষেপে পদদলিত হয়ে মৃত্যু থামিয়ে ছিলেন এই বাংলাদেশি ইঞ্জিনিয়ার | লামায় ৯ বছরের শিশু ধর্ষিত, ধর্ষক আটক | পিরোজপুরে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের দুই ভুয়া কর্মকর্তা গ্রেপ্তার | বঙ্গমাতার জন্মদিন উপলক্ষে তানোরে সেলাই মেশিন বিতরণ | ‘করোনার চেয়েও বড় সংকট হয়তো সামনে আসছে’- বিল গেটস | সিফাতের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিচার্জ | কাউখালীতে পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্রী ধর্ষণের চেষ্টা, লম্পট গ্রেফতার |
  • আজ ২৫শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

স্ত্রীকে হাসপাতালে রেখে কলেজছাত্রীকে নিয়ে পালালেন যুবলীগ নেতা!

১:৫৭ অপরাহ্ণ | সোমবার, ডিসেম্বর ৯, ২০১৯ দেশের খবর, রাজশাহী

সময়ের কণ্ঠস্বর, বগুড়া- পরকীয়ায় আসক্ত এক যুবলীগ নেতা তার অসুস্থ স্ত্রীকে হাসপাতালে রেখে কলেজছাত্রী প্রেমিকার হাত ধরে উধাও হয়েছে। অন্যদিকে হাসপাতাল শয্যায় মারা গেছেন ওই যুবলীগ নেত্রীর স্ত্রী রেহেনা বেগম (২৫ )।

ঘটনাটিকে ঘিরে বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার বুড়ইল গ্রামে তোলপাড় চলছে। অভিুযুক্ত ওই যুবলীগ কর্মীর নাম শাহীন আলম (৩০)। তার দুটি সন্তান রয়েছে।

জানা গেছে, নন্দীগ্রাম উপজেলার বুড়ইল ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সভাপতি ও আফুছাগাড়ি গ্রামের শাহজাহান আলীর ছেলে শাহীন আলমের সঙ্গে তুলাশন গ্রামের এক কলেজছাত্রীর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে ওঠে। জানাজানি হলে স্ত্রী রেহেনা বেগমের সঙ্গে শাহীনের ঝগড়া হয়।

এর জের ধরে শুক্রবার দুপুরে রেহেনা বেগম বাড়িতে কাপড় পরিষ্কার করার ডিজারজেন্ট পাউডার পানিতে মিশিয়ে পান করেন। এতে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়লে শাহীন তাকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করেন। এরপর সন্ধ্যার দিকে সুমি আকতারকে নিয়ে উধাও হন। স্ত্রী রেহেনা বেগম চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার সকালে হাসপাতালে মারা যান।

বুড়ইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ জানান, যুবলীগ নেতা শাহীনের দুটি সন্তান রয়েছে। অসুস্থ স্ত্রীকে হাসপাতালে রেখে তিনি কলেজছাত্রীকে নিয়ে পালিয়েছেন। অসুস্থ স্ত্রী হাসপাতালে মারা গেছেন। রোববার বিকাল পর্যন্ত শাহীন ও ছাত্রীর সন্ধান পাওয়া যায়নি।

নন্দীগ্রাম থানার ওসি শওকত কবির ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, তিনি লোকমুখে শুনলেও এ ব্যাপারে কেউ থানায় অভিযোগ করেননি।

Skip to toolbar