সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

বিজয় দিবস উদযাপনে প্রস্তুত জাতীয় স্মৃতিসৌধ

৩:৩৩ অপরাহ্ণ | শনিবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯ ফিচার

মোঃ মনির মন্ডল, নিজস্ব প্রতিবেদক, সাভার- ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। মানুষের শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় সিক্ত হতে সম্পূর্ণরূপে প্রস্তুত রয়েছে লাল সবুজের গালিচার মধ্যে দাঁড়িয়ে থাকা সাত স্তম্ভের স্মৃতিসৌধ।

এখন ৪৯তম বিজয় দিবস উদযাপনের জন্য মাত্র কয়েক ঘণ্টা অপেক্ষা। জাতির গৌরব আর অহংকারের এ দিনটিতে জাতীয় স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে নামবে লাখো মানুষের ঢল। তাদের শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় ফুলে ফুলে ভরে উঠবে স্মৃতিসৌধের শহীদ বেদি।

দিবসটি পালনে সবুজে ঘেরা ১০৮ হেক্টর জমির ওপর নির্মিত স্মৃতিসৌধ এলাকাটি গণপূর্তের কয়েক’শ কর্মীর নিরলস পরিশ্রমে পেয়েছে এক নতুন রূপ। রং-তুলি নতুন সাজে আর আধুনিক যন্ত্রপাতির সাহায্যে ধুয়ে মুছে চকচকে করা হয়েছে স্মৃতিসৌধ চত্বরের প্রতিটি স্থাপনা।

স্মৃতিসৌধ চত্বরের চারপাশের টবে শোভা পাচ্ছে নানা ধরনের রঙিন ফুল আর পাতা বাহারের গাছ। নিরাপত্তার জন্য ওয়াচ টাওয়ার নির্মাণ, উচ্চমাত্রার সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। পুলিশ কন্ট্রোল রুমের মাধ্যমে সার্বক্ষণিক নজরদারিসহ স্মৃতিসৌধ এলাকায় থাকবে তিন স্তরের নিরাপত্তা বলয়। এখন শুধু শহীদদের শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানোর অপেক্ষা।

১৬ ডিসেম্বরের প্রথম প্রহরে জাতীয় স্মৃতিসৌধ বেদিতে বীর সন্তানদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন রাষ্ট্রপ্রতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। থাকবে তিন বাহিনীর কুচকাওয়াজ ও গাড়ি বহরের মহড়া।

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বিদায়ের পর সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হবে সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধ। এতে লাখো মানুষের সমাগম ঘটবে স্মৃতিসৌধ চত্বর এলাকায়। আগত দর্শনার্থীদের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে সাভারের ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক এবং স্মৃতিসৌধ চত্বরের চারপাশের এলাকায় সাদা পোশাকে গোয়েন্দা নজরদারিসহ মোতায়েন থাকবে সহস্রাধিক পুলিশ সদস্য।

জাতীয় স্মৃতিসৌধের গণপূর্ত বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. মিজানুর রহমান বলেন, মহান বিজয় দিবসে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রিপরিষদের সদস্যসহ লাখো মানুষ জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন। এ জন্য জাতীয় স্মৃতিসৌধকে দীর্ঘদিন ধরে ধুয়ে-মুছে, রং-তুলির আঁচড় ও রঙ-বেরঙের ফুল দিয়ে সাজানো হয়েছে। সেই সাথে স্মৃতিসৌধে আগত দর্শনার্থীসহ সকলের নিরাপত্তা ও কোনো প্রকার অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে এখানকার পুলিশ ও আনসার ক্যাম্পকে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক অবস্থানে রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে ঢাকা জেলা পুলিশের এডিশনাল এসপি (ক্রাইম) সাইদুর রহমান বলেন, আমরা প্রতি বছর সাফল্যের সঙ্গে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে আসছি। এবারও তার ব্যতিক্রম কিছু নয়, যেকোনো প্রকার অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে প্রস্তুত রয়েছি আমরা।

Skip to toolbar