সংবাদ শিরোনাম
যে কারণে পাকিস্তানি সমর্থকদের ‘জানোয়ার’ বলেছিলেন গিবস | পাকিস্তান সফরে টাইগারদের শুভকামনা জানালেন সাকিব | ‘সুবিচার নিশ্চিত করতে আওয়ামী লীগ সরকার বদ্ধপরিকর’- প্রধানমন্ত্রী | সিরিয়ায় রাশিয়ার বিমান হামলায় নিহত ৪০ | নিশ্চয়ই অপরাধে জড়িত ছিলেন বলেই গ্রেফতার, শরিয়ত বয়াতি প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী | ‘প্রয়োজনে ভোট পিছিয়ে ব্যালটে ভোট নিন’- মির্জা ফখরুল | ভারতে চার দলের সিরিজে চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের মেয়েরা | ‘ঢাকার দুই সিটিতে ১৮টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ’- ইসি সচিব | ইচ্ছানুযায়ী বাবার কবরের পাশে শায়িত হলেন এমপি ইসমাত আরা | ‘শেখ হাসিনাকে প্রধানমন্ত্রী থেকে সরানোর ষড়যন্ত্র চলছে’- কাদের |
  • আজ ৯ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে বাকৃবি ছাত্রলীগের শ্রদ্ধা

৯:৪৬ অপরাহ্ণ | শনিবার, ডিসেম্বর ১৪, ২০১৯ শিক্ষাঙ্গন
bau

রোহান ইসলাম, স্টাফ করেসপন্ডেন্টঃ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। দিবসটি উপলক্ষে শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের বধ্যভূমিতে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ করেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সবুজ কাজী ও সাধারণ সম্পাদক মিয়া মোহাম্মদ রুবেল সহ প্রায় চার শতাধিক নেতাকর্মী বৃন্দ।

এর পর সকাল ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কমিউনিটি সেন্টারে ‘শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের তাৎপর্য’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করে জাতীয় দিবস উদযাপন কমিটি। উক্ত আলোচনা সভায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশগ্রহণ করেন।

এ সময় বাকৃবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিয়া মোহাম্মদ রুবেল বলেন, বুদ্ধিজীবীদের হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশকে মেধাশুন্য করার চেষ্টা করা হলেও তাদের আদর্শ বুকে ধারণ করে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের পর থেকে এখন পর্যন্ত শান্তি, সমৃদ্ধি ও উন্নতির দিকে দূর্বার বেগে এগিয়ে চলেছে এবং সামনের দিকে আরও এগিয়ে যাবে।

এ ছাড়া ক্যাস্পাসে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী বিভিন্ন চক্রের প্রতি হুশিয়ারি দিয়ে নতুন প্রজন্মের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জাগ্রত করার আহ্বান জানান।

বাকৃবি ছাত্রলীগের সভাপতি সবুজ কাজী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের বিজয়ের ঊষালগ্নে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে ইতিহাসের একটি কলংকিত অধ্যায় রচনা করেছে। পৃথিবীতে এরকম কোন মানবতা বিরোধী ঘটনার নজির নেই। তাই যারা এই অপকর্ম করেছে তাদের বিরুদ্ধে আমাদের ঘৃণা ও দহন কখনো শেষ হবে না।

আলোচনা সভায় অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান বলেন, ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা অর্জনের ঠিক আগে আলবদর, আলশামস, রাজাকার বাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে পাক হানাদার বাহিনী এ দেশের অসংখ্য বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করে। তারা মূলত এ দেশকে মেধাশূন্য করার জন্যই এমন জঘন্য কাজটি করেছিল। স্বাধীনতা লাভের পর বঙ্গবন্ধু দেশকে এগিয়ে নিয়ে সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। সে সময় বঙ্গবন্ধু যদি বুদ্ধিজীবীদের পাশে পেতেন তাহলে সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন আরো বেগবান হতো।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. মো. ছোলায়মান আলী ফকির, বাউরেসের পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. আবু হাদী নূর আলী খান, বাকৃবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. মনিরুজ্জামান, প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. আজহারুল হক সহ বাকৃবি ছাত্রলীগের প্রায় চার শতাধিক নেতাকর্মী বৃন্দ।

Loading...