সংবাদ শিরোনাম
রিজভীর ওপর হামলার প্রতিবাদে বিএনপির বিক্ষোভ | ‘সঠিক নেতৃত্ব দেন, না হলে আমাদেরকে নেতৃত্ব ছেড়ে দেন’- বিএনপিকে অলি | শেকৃবির হল থেকে ছাত্রলীগ নেতার বিছানাপত্র ফেলে দিল কর্মীরা | ‘দেশে আজ আর কেউ না খেয়ে থাকে না’- পরিকল্পনামন্ত্রী | বর্ণাঢ্য আয়োজনে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত | কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান অনুষদে প্রতি বছর বৃত্তি পাবে ৭ শিক্ষার্থী | এবার রাবিতে মাতৃভাষা দিবসের ব্যানারে বীরশ্রেষ্ঠদের ছবি | ‘বর্তমানে আমরা পাকিস্তান আমলের চেয়েও খারাপ অবস্থায় আছি’- অলি আহমদ | ‘শত্রুরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিয়েছিল’ | আন্ডারওয়ার্ল্ডের নেতৃত্ব দিতে ঢাকায় এসে গ্রেফতার শাকিল |
  • আজ ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ধর্ষণের দায় স্বীকার করে সাংবাদিকদের গালি দিলেন মজনু!

১০:০৬ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ১৬, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ
rab

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ রাজধানীর কুর্মিটোলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের ঘটনায় আদালতের কাছে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন র‌্যাবের হাতে আটক মজনু। বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন তিনি। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

জবানবন্দি শেষে কোর্ট হাজত থেকে কারাগারে নেওয়ার পথে ছবি তুলতে গেলে অশ্রাব্য ভাষায় তিনি সাংবাদিকদের গালাগালি করেন।

পুলিশের অপরাধ, তথ্য ও প্রসিকিউশন শাখা সূত্রে জানা যায়, মজনু নিজেকে ‘সিরিয়াল রেপিস্ট’ হিসেবে স্বীকার করেছেন। এর আগে পুলিশের কাছে দেয়া তথ্যের অনুরূপ কথাই বলেছেন।

সূত্রে জানা গেছে, মজনু বলেছেন তার কোনো স্থায়ী বাসস্থান নেই। ভবঘুরে অবস্থায়ই তিনি থাকেন। ঢাবি ছাত্রীকে ধর্ষণের আগে তিনি বহুবার মানসিক প্রতিবন্ধী, ভিক্ষুক ও ভাসমান নারীদের ধর্ষণ করেছেন।

গত ৯ জানুয়ারি এই মামলায় মজনুকে ৭ দিনের রিমান্ডে পাঠান আরেক মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সারাফুজ্জামান আনছারী। সেই রিমান্ড শেষ হওয়ার একদিন আগেই মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আবু সিদ্দিক আদালতে আসামির স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি রেকর্ড করার আবেদন করেন। সেই আবেদন মঞ্জুর করার পর তাকে বিচারকের খাসকামরায় নিয়ে জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়।

এর আগে গত ১০ জানুয়ারি ঘটনার বর্ণনা দিয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২২ ধারায় জবানবন্দি দেন ধর্ষণের শিকার ঢাবি ছাত্রী। মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসমিন আরা তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। ওই ছাত্রী সেদিন বিচারকের কছে ঘটনার সবিস্তার বর্ণনা দেন।

গত ৭ জানুয়ারি রাতে মজনুকে গ্রেফতার করে র‌্যাবের একটি টিম। পরে ধর্ষণের শিকার ওই ছাত্রীকে দেখিয়ে ধর্ষককে শনাক্ত করা হয়। গ্রেফতারের পর তার কাছ থেকে ভিকটিমের মোবাইল ফোনসহ খোয়া যাওয়া সামগ্রী জব্দ করা হয়।

প্রসঙ্গত, গত ৫ জানুয়ারি সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে ঢাবির নিজস্ব বাস ক্ষণিকায় রওনা দেন তিনি। সন্ধ্যা ৭টার দিকে কুর্মিটোলা বাসস্ট্যান্ডে বাস থেকে নামেন। এরপর একজন অজ্ঞাত ব্যক্তি তার মুখ চেপে ধরে সড়কের পেছনে নির্জন স্থানে নিয়ে যায়। ধর্ষণের পাশাপাশি তাকে শারীরিক নির্যাতনও করা হয়। তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের ক্ষতচিহ্ন পাওয়া গেছে। ধর্ষণের এক পর্যায়ে তিনি অজ্ঞান হয়ে যান।

এরপর রাত ১০টার দিকে নিজেকে একটি নির্জন জায়গায় আবিষ্কার করেন ওই ছাত্রী। পরে সিএনজি নিয়ে ঢামেকে আসেন। রাত ১২টার দিকে ওই ছাত্রীকে ঢামেক হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) ভর্তি করান তার সহপাঠীরা।

Loading...