সংবাদ শিরোনাম
রিজভীর ওপর হামলার প্রতিবাদে বিএনপির বিক্ষোভ | ‘সঠিক নেতৃত্ব দেন, না হলে আমাদেরকে নেতৃত্ব ছেড়ে দেন’- বিএনপিকে অলি | শেকৃবির হল থেকে ছাত্রলীগ নেতার বিছানাপত্র ফেলে দিল কর্মীরা | ‘দেশে আজ আর কেউ না খেয়ে থাকে না’- পরিকল্পনামন্ত্রী | বর্ণাঢ্য আয়োজনে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত | কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান অনুষদে প্রতি বছর বৃত্তি পাবে ৭ শিক্ষার্থী | এবার রাবিতে মাতৃভাষা দিবসের ব্যানারে বীরশ্রেষ্ঠদের ছবি | ‘বর্তমানে আমরা পাকিস্তান আমলের চেয়েও খারাপ অবস্থায় আছি’- অলি আহমদ | ‘শত্রুরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিয়েছিল’ | আন্ডারওয়ার্ল্ডের নেতৃত্ব দিতে ঢাকায় এসে গ্রেফতার শাকিল |
  • আজ ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

‘২০১৮ সালে ছেড়ে দিয়েছি, এবার ছাড়বো না’- মান্না

৩:৩৯ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, জানুয়ারি ১৭, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ
mann

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর ভোট চুরি করে ছাড় পেলেও এবার তা হতে দেয়া হবে না বলে হুশিয়ারি দিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহামান মান্না। শুক্রবার ১৭ জানুয়ারী জাতীয় প্রেসক্লাবের মিলনায়তনে বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদ আয়োজিত ‘নির্বাচনে আস্থাহীনতা, ইভিএম’র ব্যবহার: বর্তমান প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক এক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।

মাহমুদুর রহামান মান্না বলেন, ফখরুল ভাইয়ের সাথে কর্মী হিসেবে কাজ করতে রাজি আছি। কিন্তু পুতুপুতু করে কোনো রাজনীতি হবে না। ২০১৮ সালের ভোট চুরি করেছে, ডাকাতি করেছে, ছেড়ে দিয়েছি। এবার কিন্তু ছাড়বো না।

তিনি বলেন, আগামী ৩০ তারিখের ভোট কোনো ভোট নয়। ওই তারিখে ধানের শীষ জিততে পারবেনা। ওরা জিততে দিবে না। যদি ভোট হতো তাহলে নৌকারই খবর থাকতো না। সেই জন্যই সমস্ত বুদ্ধি-শুদ্ধি করেছেন তারা।

ইভিএম প্রসঙ্গে মান্না বলেন, ইভিএম যে একটা গজব এটা আমরা সবাই বুঝি। মানুষ যা তৈরি করে তার নিজের জন্য তৈরি করে। নির্বাচন কমিশনকে পেছন থেকে কেউ ইভিএম আমদানি করিয়েছে। ওদের নিজেদের জন্য। ২০১৮ সালে ভোটের নামে যে ডাকাতি হয়েছে আর এখন যে ভোট হচ্ছে একই কায়দায় করার সুযোগ নাই। অতএব তারা ভিন্ন একটা পথ নিয়েছে।

এ সময় মির্জা ফখরুল বলেন, ঢাকা সিটি নির্বাচনে যে মিছিল হচ্ছে সেখানে অনেক বেশি মানুষ অংশগ্রহণ করছে। তাদেরকে যদি আমরা সংহত করতে পারি এবং আন্দোলনের দিকে নিয়ে যেতে পারি তাহলে নিশ্চয়ই আমরা সফল। আর সেই কারণেই আমাদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা। আমরা বিশ্বাস করি, নির্বাচনে জয়ী হবার জন্যই আমরা অংশগ্রহণ করেছি।

গোলটেবিল বৈঠকে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপক ড. মো. আখতার হোসেন। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবি পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক শওকত মাহমুদ প্রমুখ।

Loading...