মুজিববর্ষ উদযাপনে সরকারি বরাদ্দ ১০০ কোটি টাকা

১২:০১ অপরাহ্ণ | রবিবার, জানুয়ারি ১৯, ২০২০ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- মুজিবর্ষের জন্য চলতি অর্থবছরের বাজেটে (২০১৯-২০২০) রাখা হয়েছে ১০০ কোটি টাকা৷ তবে বেসরকারি পর্যায়ে এই আয়োজনে যার যার মত খরচ করবেন৷

জার্মানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডয়েচে ভেলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মুজিব বর্ষে ব্যয়ের জন্য ১০০ কোটি টাকা বাজেটের সাধারণ খাতের টাকা৷ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে মুজিব বর্ষ নিয়ে বৈঠকের সারসংক্ষেপ থেকে জানা যায় এই ১০০ কোটি টাকার ৪০ কোটি ৬২ লাখ ৯০ হাজার টাকা এরইমধ্যে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে৷ বাজেটের বাকি ৫৯ কোটি ৩৭ লাখ ১০ হাজার টাকা এখনো ছাড় করা হয়নি৷

যা ছাড় করা হয়েছে তারমধ্যে জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির জন্য ২১ কোটি ১৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা, মিডিয়া সেন্টারের জন্য ৪৩ লাখ ৪০ হাজার৷ ভিডিও, চলচ্চিত্র নির্মাণে ১২ কোটি ৫০ লাখ৷ মোটর সাইকেল মেরামতের জন্য দুই লাখ৷ ৫৩ জেলায় ৫৫টি ক্ষণ গণনা যন্ত্রের জন্য ছয় কোটি ৫২ লাখ৷

১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মদিনে মুজিব বর্ষ শুরু হবে সবচেয়ে বড় অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে৷ আর শেষ হবে ২০২১ সালের ১৭ মার্চ আরেকটি বড় অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে৷ দু’টি অনুষ্ঠানেই বিদেশী রাষ্ট্রনায়ক ও মেহমানরা থাকবেন৷ এরইমধ্যে ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে মুজিব বর্ষের ক্ষণ গননা শুরু হয়েছে৷

এই এক বছরে সব মাধ্যমেই বঙ্গবন্ধুকে তুলে ধরা হবে৷ বঙ্গববন্ধু কন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৃহস্পতিবার (১৫ জানুয়ারি) সংসদে বলেছেন, ‘মুজিববর্ষ পালনের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বঙ্গবন্ধুর কর্মময় জীবন আরও ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে দেওয়ার সুযোগ সৃষ্টি হবে৷ এর ফলে বিশ্ববাসী নতুন করে বঙ্গবন্ধুর আত্মত্যাগ ও বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবন সম্পর্কে জানার সুযোগ পাবেন৷’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২০২০-২১ সালের জন্য ইউনেস্কোর গ্রহণ করা ৫৯টি বার্ষিকী উদযাপনের প্রস্তাবের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন৷ বঙ্গবন্ধুকে কেবল একজন রাজনৈতিক নেতা হিসেবে নয়, বরং সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ের প্রতীক হিসেবে এই সিদ্ধান্ত গ্রহনে ইউনেস্কো উদ্যোগী হয়৷ এক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর অবিচল সংগ্রাম ও ত্যাগের বিষয়গুলো ইউনেস্কো বিশেষভাবে বিবেচনা করেছে৷’

মুজিব বর্ষ উদযাপনে মোট দু’টি জাতীয় পর্যায়ের কমিটি কাজ করছে৷ একটি হলো: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় উদযাপন কমিটি৷ এই কমিটির প্রধান হলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ এই কমিটিতে আছেন স্পিকার, প্রধান বিচারপতি, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, লেখক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, ক্রীড়াবিদ, সাংবাদিকসহ দেশের বিশিষ্ট জনেরা৷ এর মোট সদস্য ১২০৷ এই কমিটির সদস্য সচিব হলেন ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী৷

আরেকটি হলে: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি৷ এই কমিটির সভাপতি জাতীয় অধ্যাপক মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম৷ এর সদস্য সংখ্যা ৮০ জন৷ ড. কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী এই কমিটির প্রধান সমন্বয়ক৷ তিনি দুই কমিটিতেই প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব পদমর্যাদায় কাজ করছেন৷

মুজিব বর্ষে মোট ২৯৩টি কর্মসূচির চূড়ান্ত অনুমোদন হয়েছে৷ প্রধান কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ১৭ মার্চ জাতীয় প্যারেড স্কোয়ারে বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মদিনের অনুষ্ঠান৷ ২০২১ সালের ১৭ মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীর অনুষ্ঠান৷ এই অনুষ্ঠান সোহরাওয়ার্দী উদ্যান বা অথবা জাতীয় সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় হতে পারে৷ স্থান এখনো চূড়ান্ত হয়নি৷

বছরব্যাপী ঢাকাসহ সারাদেশে নানা অনুষ্ঠানের কর্মসূচি আছে৷ বিদেশে বাংলাদেশের দূতাবাসগুলোও অনুষ্ঠান করবে৷ এছাড়া বিশ্বের কয়েকটি দেশে বঙ্গবন্ধুর ওপর মিডিয়া কনফারেন্স করা হবে৷ ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন এবং বিশ্বভারতীসহ বিদেশী আরো পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু চেয়ার স্থাপন৷ইউনিভার্সিটি অব ক্যামব্রিজে বঙ্গবন্ধু সেন্টার, লন্ডনে মাদাম তুসো মিউজিয়ামে ও জাতিসংঘ সদর দপ্তরে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপন৷ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বঙ্গবন্ধুর নামে একাধিক পুরস্কার প্রবর্তন৷ বঙ্গবন্ধুর ওপর ২৪ ঘন্টার ভিডিও চিত্র নির্মাণ৷ সাতটি ওয়েব সিরিজ, ১২টি স্বল্প দৈর্ঘ্য চলচিত্র ও ৬টি শিশুতোষ এনিমেটেড চলচিত্র নির্মাণ করা হবে৷

বঙ্গবন্ধুর নির্বাচিত ভাষণ ইংরেজি ছাড়াও আরো ১২টি হিন্দি, উর্দু, ফরাসি, জার্মান, চাইনিজ, আরবি, ফার্সি, স্প্যানিশ, রুশ, ইটালিয়ান, কোরিয়ান ও জাপানি ভাষায় অনুবাদ করা হবে৷ বঙ্গবন্ধুর জীবনীভিত্তিক ১০০ প্রকাশনা হবে৷

এই সব উদ্যোগ এবং আয়োজন করছে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়৷ আর এর বাইরে সারাদেশে বেসরকারী পর্যায়ে বছরব্যাপী নানা আয়োজন রয়েছে ৷ প্রধানমন্ত্রী সংসদে কলেছেন, বেসরকারী উদ্যোগে অনেক প্রস্তাব আসছে৷ তকে শৃঙ্খলার কথা মাথায় রেখে সব প্রস্তাব গ্রহণ করা সম্ভব হচ্ছেনা৷

Loading...