সংবাদ শিরোনাম
‘সঠিক নেতৃত্ব দেন, না হলে আমাদেরকে নেতৃত্ব ছেড়ে দেন’- বিএনপিকে অলি | শেকৃবির হল থেকে ছাত্রলীগ নেতার বিছানাপত্র ফেলে দিল কর্মীরা | ‘দেশে আজ আর কেউ না খেয়ে থাকে না’- পরিকল্পনামন্ত্রী | বর্ণাঢ্য আয়োজনে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত | কৃষি অর্থনীতি ও গ্রামীণ সমাজবিজ্ঞান অনুষদে প্রতি বছর বৃত্তি পাবে ৭ শিক্ষার্থী | এবার রাবিতে মাতৃভাষা দিবসের ব্যানারে বীরশ্রেষ্ঠদের ছবি | ‘বর্তমানে আমরা পাকিস্তান আমলের চেয়েও খারাপ অবস্থায় আছি’- অলি আহমদ | ‘শত্রুরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিয়েছিল’ | আন্ডারওয়ার্ল্ডের নেতৃত্ব দিতে ঢাকায় এসে গ্রেফতার শাকিল | ‘গৃহহীনদের ঘর তৈরি করে দেবো’- প্রধানমন্ত্রী |
  • আজ ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মাঠজুড়ে হলুদ বরণ ফুল, হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে

১১:৩৯ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২১, ২০২০ ফিচার

সাইফুল ইসলাম মুকুল, রংপুর প্রতিনিধি- রংপুরের শহর থেকে গ্রামের মাঠে মাঠে দুলছে সরিষা, মেঠো পথের দুই পাশ জুড়ে হলুদের সমারোহ। মাঠে মাঠে ছেয়ে গেছে সরিষার ক্ষেত। সবুজের আগায় ভরা হলদে সরষে ফুলে মৌমাছির ঘুরপাক। বাতাসে দুলছে সরিষা ফুল, হাসছে কৃষক। দিগন্ত জোড়া সরিষার বাম্পার ফলনে বেজায় খুশি কৃষকের মন।

এবার রবি শস্য হিসেবে রংপুর অঞ্চলে গত বছরের তুলনায় ৬ হাজার হেক্টরেরও বেশি জমিতে সরিষার চাষ হয়েছে। এখন ভালো দামের আশায় সরষে ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন উত্তরের চাষিরা।

কৃষি সম্প্রসারণ সুত্রে জানা গেছে, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় গেল বছরের তুলনায় এবার রংপুর অঞ্চলে সরিষার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে। এ বছর রংপুর কৃষি অঞ্চলের পাঁচ জেলায় ৩৮ হাজার ৯৪১ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এ পর্যন্ত লক্ষ্যমাত্রার ৭০.৫৪ শতাংশ অর্জন হয়েছে। যা গেল বছরের চেয়ে ৬ হাজার হেক্টরের বেশি। গেল বছর ২৩ হাজার ৪৮৯ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছিল।

এখন কৃষকের চোখে মুখে ভালো দামে সরিষা বিক্রির আশা। আর দেড় থেকে দুই মাস পর সরিষা ঘরে তোলার সময় বর্তমান বাজার অনুযায়ী দাম পেলে আগামীতে এ অঞ্চলের সরিষার চাষাবাদ আরো বাড়ছে বলে মনে করছেন কৃষকরা।

জানা গেছে, এবছর কুড়িগ্রাম জেলায় ১১ হাজার ১০ হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছে। যা রংপুর কৃষি অঞ্চলের অন্যান্য জেলার তুলনায় সবচেয়ে বেশি। আর সবচেয়ে কম আবাদ হয়েছে লালমনিরহাট জেলায়। এখানে মাত্র ২ হাজার ৩০ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়েছে। এছাড়া গাইবান্ধায় ৬ হাজার ২৫ হেক্টর, নীলফামারীতে ৫ হাজার ৩৯০ হেক্টর এবং রংপুরে ৩ হাজার হেক্টর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছে।

রংপুরের মমিনপুর এলাকার নয়ার হাটের কৃষক কুরবান আলী জানান,গত বছরের তুলনায় এবার তার ৩০ শতাংশ জমিতে সরিষার ভালো চাষ হয়েছে। আর দেড় থেকে দুই মাস পরই এ ফসল ঘরে উঠবে। গত বছর ভালো দাম পাওয়ায় এবারও সরিষা আবাদ করেছেন তিনি।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক ড. সারোয়ারুল হক জানালেন, অন্য ফসলের চেয়ে সরিষা উৎপাদনে খরচ অনেক কম এবং লাভ বেশি হওয়ায় সরিষা চাষে রংপুর অঞ্চলের কৃষকরা ঝুঁকে পড়েছেন সম্পূরক রবি শস্য হিসেবে সরিষা চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করা হয়েছে। পাশাপাশি সরকারের পক্ষ থেকে বিনামূল্যে সরিষা বীজ প্রদান করা হয়েছে। এরই মধ্যে চাষকৃত সরিষার বেশির ভাগেই দানা ও ফুল এসে গেছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে।

চলমান শৈত্যপ্রবাহ ও ঘন কুয়াশা বেশি দিন স্থায়ী হলে সরিষার ফলনে কিছুটা ব্যাঘাত ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ আলী। তিনি আরো জানান, গত বছর বন্যা ও প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে সরিষার আবাদ কম হয়েছিল। এবার আবহাওয়া ও পরিবেশ অনুকূল থাকায় সরিষার আবাদ গেল বছরের চেয়ে বেশি হয়েছে। যদি শৈত্যপ্রবাহের স্থায়িত্ব কমে আসে তাহলে আবাদে কোনো প্রভাব পড়বে না।

Loading...