‘মার্কিন সেনাদের লাথি মেরে তাড়ানো হবে’

৩:৫৬ অপরাহ্ণ | শনিবার, জানুয়ারি ২৫, ২০২০ আন্তর্জাতিক
iraq

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ যুক্তরাষ্ট্রবিরোধী বিক্ষোভে ফুসে উঠেছে ইরাকের রাজধানী বাগদাদ। দেশটির প্রভাবশালী শিয়া নেতা মুক্তাদা আস-সাদরের ডাকা ‘মিলিয়ন-ম্যান মার্চ’ নামের এই বিক্ষোভ পরিণত হয়েছে জনসমুদ্রে। গত কয়েক দশকে যুক্তরাষ্ট্রবিরোধী এত বড় বিক্ষোভ আর দেখেনি বিশ্ব।

শুক্রবার (২৪ জানুয়ারি) স্থানীয় সময় দুপুরে বাগদাদের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বিক্ষোভে যোগ দিতে থাকেন ইরাকিরা। রাজধানীর বাইরের বিভিন্ন প্রদেশ থেকেও এই কর্মসূচিতে যোগ দেয়ে শিয়া, সুন্নি, কুর্দি ও আরব- নির্বিশেষে সব গোত্র-সম্প্রদায়ের ইরাকিরা। দুপুর নাগাদ বাগদাদে জড়ো হয় লাখ লাখ মানুষ।

‘আমেরিকা নিপাত যাক, ইসরায়েল নিপাত যাক’, ‘ইরাক থেকে বের হওয়া আমেরিকান সেনারা’- এ ধরনের শ্লোগানে যেন কাঁপাতে থাকে বাগদাদের রাজপথ।

বিক্ষোভের পর ইরাকের জনপ্রিয় আধা সামরিক বাহিনী হাশদ আশ-শাবি (পিএমইউ)’র শীর্ষস্থানীয় এক নেতা বলেন, আহাম্মক ট্রাম্পের স্বেচ্ছায় ইরাক থেকে মার্কিন সেনাদল সরিয়ে নেয়া উচিত। নইলে মার্কিন সেনাদের লাথি মেরে ইরাক থেকে বের করে দেয়া হবে বলে হুমকি দেন হাশদ আশ-শাবির অন্যতম শরিক আসাহিব আহল-আল হকের নেতা কাইয়াস আল-খাজালি।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘আজকের লাখো জনতার বিক্ষোভ শোভাযাত্রা পরিষ্কার বার্তা দিয়েছে। এরপরও যদি মার্কিন সেনাদের ইরাক থেকে সরিয়ে নেয়া না হয় তবে লাথি মেরে তাদের ইরাক থেকে বের করে দেয়া হবে।’

ইরাকের নারী-পুরুষ-শিশুসহ সর্বস্তরের মানুষ আজ বিশ্বের কাছে পরিষ্কার ভাবে এ বার্তা দেয়ার জন্য দলে দলে রাস্তায় নেমে এসেছিল বলেও জানান তিনি। লাখো জনতার বিক্ষোভ শোভাযাত্রার প্রতি অকুণ্ঠ সমর্থন দেয়ায় ইরাকের সকল রাজনীতিবিদ, গোত্র প্রধান, শিক্ষাবিদসহ সাংবাদিকের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন তিনি।

ওই বিক্ষোভের ডাক দেয়ায় ইরাকের প্রভাবশালী শিয়া নেতা মোক্তদা আস-সাদরের প্রতিও গভীর কৃতজ্ঞতা জানান কাইয়াস আল-খাজালি।

মোক্তাদা আল-সদরের ডাকেই শুক্রবার বাগদাদে ওই বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয় বলে বিবিসি জানিয়েছে। ওই বিক্ষোভে ইরান-সমর্থিত মিলিশিয়ারাও যোগ দিয়েছিল। ইরাকে সাম্প্রতিক কালে এতো বড় ধরনের বিক্ষোভ দেখা যায় নি।

প্রসঙ্গত, ইরাকে বর্তমানে পাঁচ হাজারের মতো মার্কিন সৈন্য অবস্থান করছে। জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের জিহাদিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে করার জন্য মার্কিন নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক সামরিক জোটের অংশ হিসেবেই এসব সেনাদের সেখানে মোতায়েন করা হয়েছে।

Loading...