সংবাদ শিরোনাম
আরব আমিরাতে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বাংলাদেশি নাগরিক শনাক্ত | বিশ্বে ২২ কোটি ৮০ লাখ মানুষের প্রথম ভাষা বাংলা | বোন-কন্যাকে সঙ্গে নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতির সামনে প্রধানমন্ত্রীর সেলফি | ‘খালেদা জিয়া উর্দুতে পাস করলেও বাংলায় ফেল’- তথ্যমন্ত্রী | একুশে ফেব্রুয়ারিতে বাংলা ফন্ট উদ্বোধন করল জাতিসংঘ | শহীদ দিবসের ব্যানারে বীরশ্রেষ্ঠদের ছবি! | বাবাকে নিয়ে ইশরাকের আবেগঘন স্ট্যাটাস | অবশেষে বিটিআরসিকে এক হাজার কোটি টাকা দিতে রাজি হল গ্রামীণফোন | ‘ধনীদের উচিত গরীবদের বিয়ে করা’- ইন্দোনেশিয়ার সংস্কৃতিমন্ত্রী | ব্যস্ততার কারণে মাতৃভাষা দিবসে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নিলেন বশেমুরকৃবির তিন শিক্ষক |
  • আজ ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

‘পঁচাত্তরের মতো দেশে একদলীয় শাসন চলছে’- মওদুদ

১১:১৯ অপরাহ্ণ | শনিবার, জানুয়ারি ২৫, ২০২০ জাতীয়
mowdud

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, ‘এদেশে আজকে যা চলছে একদলীয় শাসন। ১৯৭৫ সালের একদলীয় শাসনের চিন্তা-ধ্যান-ধরনা এখন চলেছে। ওই সময়ে যেমন কোনও রাজনীতি ছিল না, এখনও দেশে কোনও রাজনীতি নাই। এখন কোনও কার্য্কর সংসদ নাই, আইনের শাসন নাই, বিচার বিভাগ ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নাই।’

শনিবার (২৫ জানুয়ারি) সংসদে চতুর্থ সংশোধনীর মাধ্যমে বাকশাল প্রতিষ্ঠার দিবসে বিএনপি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এই অভিযোগ করেন।

মওদুদ আহমেদ বলেন, ‘১৯৭৫ সালে সংবিধান সংশোধন করে আনুষ্ঠানিকভাবে একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করা হয়েছিলো। ঠিক এখন অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে এবং সুকৌশল সেই একই ব্যবস্থা অনানুষ্ঠানিকভাবে চলছে। গণতন্ত্রের আবরণে দেশে স্বৈরতন্ত্র এবং ফ্যাসিবাদের আবির্ভাব ঘটিয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সবই তারা ধবংস করে দিয়েছে।’

এই অবস্থা থেকে উত্তরণে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান রেখে মওদুদ আহমদ বলেন, ‘আজকের এই দিনে জাতির প্রত্যয় হলো— দেশে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থা পুনর্বহাল করার জন্য সকল গণতান্ত্রিক দেশপ্রেমিক রাজনৈতিক দল-মত-শ্রেণি, বুদ্ধিজীবী, পেশাজীবী, শ্রমজীবী, ছাত্র-যুবকসহ সকল শ্রেণির মানুষকে ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করে যেতে হবে। আমরা মনে করি— মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতার চেতনা এবং গণতন্ত্রের জয় অবশ্যম্ভাবী।’

বিএনপির এই নীতিনির্ধারক বলেন, ‘১৯৯১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত দেশে যে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থা কায়েম করা হয়েছিলো তা পরবর্তিতে সেনা সমর্থিত একটি তত্ত্বাবধায়ক সরকার পূর্বপরিকল্পিতভাবে আওয়ামী লীগের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করার জন্য ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং আওয়ামী লীগকে বিজয়ী করা হয়। এরপর একই ধারাবাহিকতায় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি এবং ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর জনগণের ভোটের অধিকার হরণ করে আরও দুইটি প্রহসনের নির্বাচন করা হয়। সেই থেকে আজ পর্যন্ত ১১ বছর আওয়ামী লীগ স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে নস্যাত করে একদলীয়ভাবে দেশ চালিয়ে ১৯৭৫ সালে ২৫ জানুয়ারি প্রবর্তিত বাকশাল ব্যবস্থানে পরোক্ষভাবে কায়েম করেছে।’

মওদুদ বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষের কাছে এই (বাকশাল) ব্যবস্থা কখনোই গ্রহণযোগ্য নয়। তারা নিজেদের অধিকার আদায়ের জন্য শেষ পর্যন্ত যুদ্ধ করেছে। সেই গণতন্ত্র তারা ফিরে পেতে চায়। স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা এবং মূল্যবোধ ফিরিয়ে আনার দায়িত্ব এখন বিএনপির ওপর জনগন অর্পন করেছে।’

‘একদলীয় শাসন থেকে শহীদ জিয়া কর্তৃক বহুদলীয় গণতন্ত্র এবং পরবর্তীতে দ্বাদশ সংশোধনীর মাধ্যমে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশের সংসদীয় গণতন্ত্র প্রবর্তন করে গণতন্ত্রের পূর্ণাঙ্গ রূপ দেয়া হয়েছিল। আজকে সেই গণতন্ত্র আমাদের নেই।’

বেগম খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে কারাবন্দি করে রাখার বিষয়টি তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি একই সূত্রে গাঁথা।’

গুলশানে চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সেলিমা রহমান, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, ভাইস-চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, বরকত উল্লাহ বুলু, শামসুজ্জামান দুদু ও শওকত মাহমুদ উপস্থিত ছিলেন।

Loading...