• আজ ৭ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পাওনা টাকা চাওয়ায় বাউফলে ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে জখম

৭:০৮ অপরাহ্ণ | রবিবার, জানুয়ারি ২৬, ২০২০ বরিশাল
Pirojpur

কৃষ্ণ কর্মকার, বাউফল(পটুয়াখালী) প্রতিনিধি: পাওনা টাকা চাওয়াকে কেন্দ্র করে পটুয়াখালীর বাউফলে মো. মাহাবুব মোল্লা (৩৮) নামে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়েছে। তাকে আশংকাজনক অবস্থায়  রোববার ঢাকার জাতীয় অর্থোপেটিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে নিয়ে যাওয়া হয়।

গত শনিবার রাতে উপজেলার নাজিরপুর ছোট ডালিমা গ্রামে ওই ঘটনা ঘটেছে। মাহাবুব উপজেলার নাজিরপুর ছোট ডালিমা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও ঢাকায় প্লেন সীটের ব্যবসা করেন।

মাহাবুব মোল্লার অভিযোগ, এক সময়ের ব্যবসায়িক পার্টনার মো. জসিম উদ্দিনের (৩৫) নির্দেশে তারই ভাতিজা মো. রাহাত (২০)  ও মো. আনোয়ারের (২৫) নেতৃত্বে চার-পাঁচজনের একটি দল ওই ঘটনা ঘটিয়েছে।

জানা গেছে, আহত মাহাবুব ও জসিম উদ্দিন একত্রে দীর্ঘদিন ধরে ঢাকায় প্লেন সীটের ব্যবসা করতেন। কয়েক মাস আগে ওই ব্যবসার পাশাপাশি ঠিকাদারি ব্যবসা শুরু করেন জসিম। তখন প্লেন সীটের ব্যবসা থেকে ৫১ লাখ ধার নেন জসিম। পাওনা টাকা চাইতে গেলে দুজনের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। মাহাবুব গত শুক্রবার ঢাকা থেকে বাড়ি আসেন। শনিবার বিকেলে উপজেলা সদরে কাজ শেষে রাতে মোটরসাইকেলে করে বাড়ি যাওয়ার পথে রাত সাড়ে নয়টার দিকে নাজিরপুর ছোট ডালিমা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পিছনে গতি রোধ করে রাহাত ও আনোয়ারের নেতৃত্বে চার-পাঁচজনের একটি দল।

এ সময় মাহাবুবেরর ওপর হামলা চালিয়ে এলোপাতাড়িভাবে কোপাতে শুরু করে। একপর্যায়ে মাহাবুব অচেতন হয়ে পড়লে হামলাকারীরা চলে যায়। স্থানীয় লোকজন মাহাবুবকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। অবস্থা গুরুতর হওয়ায় ওই রাতেই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেও অবস্থার অবনতি হলে আজ রোববার তাকে ঢাকার জাতীয় অর্থোপেটিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে পাঠানো হয়।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেও চিকিৎসা কর্মকর্তা মোহাম্মদ তাসিফুর রহমান বলেন,‘ গুরুতর আহত হওয়ায় তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’মাহাবুবের এক স্বজন বলেন,‘এ ঘটনায় তারা আইনের আশ্রয় নিবেন।

মো. জসিম উদ্দিন বলেন,‘হামলার ঘটনার সঙ্গে তিনি কোনোভাবেই জড়িত না।আর তার কাছে যে পরিমান টাকা পাওনার কথা বলা হচ্ছে তা সত্য নয়, তার (জসিম) কাছে মাহাবুব চার লাখ টাকা পাবেন।

বাউফল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আল মামুন সত্যতা স্বীকার করে বলেন,‘খবর পেয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালানো হয়েছে।  যা অব্যাহত আছে। তবে আহত ব্যক্তির পক্ষে আজকে (রোববার) বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত কেউ কোনো অভিযোগ দেয়নি।

Loading...