সংবাদ শিরোনাম
ইতালিতে করোনায় আক্রান্ত ৬৫০, সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ৪২ জন | ‘ভেটেরিনারি শিক্ষায় শতভাগ কর্মসংস্থান নিশ্চিত করা সম্ভব’ | আশুলিয়ায় ছেলের আঘাতে বাবার মৃত্যু, আটক ২ | ভারতে মুসলিম নির্যাতনের প্রতিবাদে টঙ্গীতে বিক্ষোভ মিছিল | ‘অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক মোদিকে আসতে দেয়া হবে না’ | ‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে দায় সরকারকেই নিতে হবে’- মওদুদ | ‘পাপিয়ার সঙ্গে জড়িত সবাইকে আইনের আওতায় আনা হবে’- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী | তুরস্কের পাল্টা হামলায় ১৬ সিরীয় সেনা নিহত | দিল্লির বিক্ষোভ-সহিংসতায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪২ | ‘আওয়ামী সিন্ডিকেটের জন্য সরকার বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি করেছে’- রিজভী |
  • আজ ১৫ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ভোটার তালিকা হালনাগাদের সময় বাড়াতে বিল পাস

৯:৩২ অপরাহ্ণ | রবিবার, জানুয়ারি ২৬, ২০২০ জাতীয়
song

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ প্রতি বছর ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার সময়সীমা বিদ্যমান ৩০ দিন থেকে বাড়িয়ে ৬০ দিন করার বিধানের প্রস্তাব করে সংসদে ভোটার তালিকা (সংশোধন) বিল, ২০২০ পাস করা হয়েছে। রোববার আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন। পরে বিলটি কণ্ঠভোটে পাস হয়।

পাস হওয়া বিলে ভোটার তালিকা আইনের ১১ ধারার ১ উপধারা সংশোধনের প্রস্তাব করা হয়েছে। এতে জাতীয় ভোটার দিবসের সঙ্গে মিল রেখে কম্পিটার ডাটাবেজে সংরক্ষিত বিদ্যমান ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার সময়সীমা প্রতি বছর ২ জানুয়ারি থেকে ৩১ জানুয়ারির পরিবর্তে ২ জানুয়ারি থেকে ২ মার্চ প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। বিলটি আইনে পরিণত হলে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার সময়সীমা ৬০ দিন হবে।

জাতীয় পার্টির রওশন আরা মান্নান, বিএনপির রুমিন ফারহানা ও হারুন অর রশীদ বিলের ওপর জনমত যাচাই, বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও সংশোধনী প্রস্তাব আনলে তা কন্ঠ ভোটে নাকচ হয়ে যায়।

তবে বিএনপির এমপিদের সমালোচনার জবাবে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘বিএনপির মুখে এসব কথাই মানায়। কারণ তাদের ভোট করার অভ্যাস নেই। তারা ক্ষমতা দখল করে ‘হ্যাঁ-না’ ভোট করেছিলেন। তাতেও সন্তুষ্ট হতে না পেরে এক কোটি ২৩ লাখ ভুয়া ভোটার বানিয়ে নির্বাচনে জয়লাভের চেষ্টা করেছিলেন। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচনের আয়োজন করেছিলেন। এখন বিএনপির দলীয় সদস্যরা আইনের দীক্ষা দিচ্ছেন!’

উল্লেখ্য, গত ২০ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে বিলটি উত্থাপনের পর তা অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়। কমিটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে বিলটি পাসের সুপারিশ করে গত ২৩ জানুয়ারি সংসদে প্রতিবেদন জমা দেয়।

Loading...