প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গান!

১১:৪৬ অপরাহ্ণ | রবিবার, জানুয়ারি ২৬, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ
hasina

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ চট্টগ্রামের ইতিহাস-ঐতিহ্য আর সাহিত্য-সংস্কৃতির সঙ্গে খুব কাছ থেকে পরিচিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তারই প্রতিফলন হলো আজ বিটিভি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের ১২ ঘণ্টা সম্প্রচারের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে। নিজের কণ্ঠেই গাইলেন চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গান! পরে নিজ আগ্রহেই স্থানীয় এক শিল্পীর কাছ থেকে শোনেন চাঁটগাইয়্যা গান। এ সময় প্রধানমন্ত্রীকে বেশ উচ্ছ্বাস প্রকাশ কারতে দেখা যায়।

রোববার বেলা সাড়ে ১১টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের ১২ ঘণ্টা অনুষ্ঠান সম্প্রচার কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন তিনি।

ভিডিও কনফারেন্সে চট্টগ্রামের একজন সাংস্কৃতিক কর্মীর সঙ্গে কথা বলার সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এটা যেহেতু একটি সাংস্কৃতিক বিষয়, আমরা গান যদি শুনতে পারতাম ভালো হতো না?

এ সময় প্রধানমন্ত্রী নিজেই গেয়ে উঠেন, ‘চাঁটগাইয়্যা মানুষ আঁরা হিন্দু-মুসলমান। সিনার লই সিনা মিলাই, ঠেকাই ঝড়-তুফান।’

চট্টগ্রাম প্রান্তে থাকা চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক আগামীতে গান শোনানোর ব্যবস্থা করবেন জানালে প্রধানমন্ত্রী প্রশ্ন করেন, সেখানে কি একজনও গায়ক নেই? এটা একটা কথা হলো?

এ সময় গান গাওয়ার জন্য এগিয়ে আসেন আধুনিক গানের শিল্পী মোস্তফা কামাল। বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনাকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা। আপনি যে চট্টগ্রামের গান শুনতে চেয়েছেন সেই জন্য বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে চট্টগ্রামের একটি আঞ্চলিক গান একটুখানি শুনাচ্ছি।’

এরপর তিনি শোনান সনজিৎ আচার্যের বিখ্যাত চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গান- ‘বাঁশখালী মইষখালী পাল উড়াইয়া দিলে সাম্পান গুরগুরাই টানে / পাল তুলিয়া দিলে সাম্পান গুরগুরাই টানে / হন হন যাবি আঁর সাম্পানে? কর্ণফুলীর মাঝি আই যাইয়ুম ভাটি উজানে / হন হন যাবি আঁর সাম্পানে?’

গান শুনে বেশ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘খুব ভালো, খুব সুন্দর।’

এর আগে চট্টগ্রাম ওয়াসার চট্টগ্রাম পানি সরবরাহ উন্নয়ন ও স্যানিটেশন প্রকল্পের (১ম সংশোধিত) আওতায় নির্মিত ‘শেখ রাসেল পানি শোধনাগার’ এর উদ্বোধন ঘোষণা করে প্রধানমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, হালদা নদীর মদুনাঘাট এলাকায় শেখ রাসেল পানি শোধনাগার প্রকল্পটি স্থাপন করা হয়। ২০১৫ সালে এই প্রকল্পের নির্মাণকাজ নতুন করে শুরু হয়। বিশ্বব্যাংক এই প্রকল্পে অর্থায়ন করেছে। কোরিয়ান একটি প্রতিষ্ঠান প্রকল্পটির নির্মাণকাজ সম্পন্ন করে। এ প্রকল্প থেকে নগরীতে ৯ কোটি লিটার পরিশোধিত পানি সরবরাহ করা হচ্ছে।