• আজ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

“বসতবাড়ির রাস্তা বন্ধ করে শত্রুতা!”

৬:৪২ অপরাহ্ণ | বুধবার, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২০ খুলনা
sotru

বেনাপোল প্রতিনিধিঃ যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার মীরপুরে বসতবাড়ির চলাচলের রাস্তা উদ্দেশ্যমূলকভাবে বন্ধ করে দেয়ায় মানবেতর জীবনযাপন করছে একটি অসহায় পরিবার।

বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্ট এলাকায় আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে। উদ্দেশ্যমূলকভাবে বসতবাড়ির রাস্তা বন্ধ করাকে অমানবিক বলছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

ভুক্তভোগী সানোয়ার মোল্যা জানান, তার চাচাত ভাই বাঘারপাড়া পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর মশিয়ার রহমানের সাথে দীর্ঘদিন জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। মাঠের (চাষাবাদের) ৩৮ শতক জমি নিয়ে এ বিরোধ। এ ব্যপারে আদালতে মামলা বিচারাধীন। আদালত মামলা নিস্পতি না হওয়া পর্যন্ত পূর্বের মতো ভোগ করার নির্দেশ দিয়েছেন। তারপরও মশিয়ার রহমান তার রোপণ করা ধান কেটে নিয়ে গেছে। এখন হুমকি দিচ্ছে আট শতক নিয়ে ৩০ শতক ছেড়ে দিতে।

তিনি এতে রাজি না হওয়ায় এলাকার প্রভাবশালীদের সাথে নিয়ে মামলা তুলে নেয়ার হুমকি দিচ্ছে। তার বসতবাড়ির রাস্তা ঘিরে রেখেছে উদ্দেশ্যমূলকভাবে। গত তিন মাস আগেও রাস্তা বন্ধ করেছিল তারা। শালিশের মাধ্যমে রাস্তা খুলেও দিয়েছিল তখন। বর্তমানে আতঙ্কে আছেন বলেও উল্লেখ করেন সানোয়ার।

মীরপুর গ্রামের বাসিন্দা মুন্সি বাহার উদ্দিন বলেন, ‘বসতবাড়ির রাস্তা বন্ধ করে দেয়া অন্যায়-অমানবিক। বিষয়টি নিয়ে সমালোচনার ঝড় বইছে’। এব্যাপারে প্রশাসনের নজরদারি প্রয়োজন বলেও মত দেন তিনি।

জাহাঙ্গীর মোল্যা জানান, ‘সানোয়ারের সাথে জমিজমা নিয়ে আমার চাচাত বড় ভাই মশিয়ারের ঝামেলা আছে। তাই তাকে ‘‘সাইজ’’ করার জন্য আমার জায়গা আমি ঘিরে রেখেছি। আমার জায়গা আমি কী করবো সেটা আমার ব্যাপার’।

সাবেক পৌর কাউন্সিলর মশিয়ার রহমান বলেন, ‘রাস্তা ঘেরার সাথে আমার সম্পৃক্ততা নেই। সানোয়ারের সাথে আমার জমিজমা নিয়ে ঝামেলা আছে। আমার জমি জবরদখল করে খেয়েছে দেড় বছর। সে শালিশ মানেনা। বিষয়টি পৌরসভার মেয়র, থানা পুলিশও অবগত আছেন। আপনি স্থানীয় পৌর কাউন্সিলরের সাথে কথা বলেন’।

স্থানীয় ৩ নং ওয়ার্ডের পৌর কাউন্সিলর খবির উদ্দিন বলেন, ‘এ ব্যাপারে সানোয়ার আমার কাছে অভিযোগ নিয়ে আসেনি। না আসলে আমি কি করতে পারি। তবে আমি যতটুকু জানি গাছ লাগানোর জন্য জায়গা ঘেরা হয়েছে’।

বাঘারপাড়া পৌরসভার মেয়র কামরুজ্জামান বাচ্চু বলেন, ‘বিষয়টি থানা পুলিশ জানে। তবে আমি ৩/৪ মাস আগে দু’পক্ষের সাথে বসে মিমাংসা করেছিলাম। নতুন করে সানোয়ারের বসতবাড়ির রাস্তা ঘিরেছে কিনা জানিনা। আমি এখন অফিসিয়াল কাজে ঢাকায় অবস্থান করছি’।

বাঘারপাড়া থানার ওসি জসিম উদ্দিন জানান, ‘বিষয়টি সম্পর্কে আমার জানা নেই। তবে কেউ আমার কাছে অভিযোগ নিয়ে আসলে বিষয়টি গুরুত্বের সাথে দেখবো’।

বাঘারপাড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার তানিয়া আফরোজ বলেন, ‘আমার কাছে কেউ এ ধরনের অভিযোগ নিয়ে আসেনি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করবো’।