• আজ ১০ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বিয়ের দাবিতে ছেলের বাড়িতে মেয়ের অবস্থান

৭:০২ অপরাহ্ণ | সোমবার, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২০ আলোচিত
Panchagar

নাজমুস সাকিব মুন, পঞ্চগড় প্রতিনিধিঃ ঘড়িতে সময় সকাল ১০ টা। হঠাৎ করে ছেলের বাড়ীতে বিয়ের দাবি নিয়ে আগমন ময়নার।

সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলায় এই ঘটনা ঘটে। উপজেলার চিলাহাটি ইউনিয়নের উত্তর বানিয়াপাড়া গ্রামে মোঃ সামছুদ্দিন এর ছেলে মোঃ ফরহাদ হোসেন(২৩) এর বাড়ীতে পাশ্ববর্তী তিস্তাপাড়া গ্রামের মোঃ মফিজল এর মেয়ে এস কে ময়না (১৮) বিয়ের দাবিতে আসে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায় গত ০৯ ফেব্রুয়ারি উভয় পক্ষের অভিভাবকের মিমাংসার মাধ্যমে বিয়ের আলোচনায় আসা হয়৷ কারণ বসত শেষ পর্যন্ত আলোচনার কোনো সুরাহা হয়নি বলে আজ ফরহাদ হোসেন এর বাড়ীতে ময়না বিয়ের দাবি নিয়ে চলে আসে। সেই সময় ময়নাকে বাড়ী থেকে বের করার জন্য বিভিন্ন নির্যাতনের মুখে পড়তে হয়।

ময়না জানান, সে মোঃ ফরহাদ হোসেন এর সাথে যোগাযোগ করে তার বাড়িতে আসে। আসার পর ফরহাদ কে না পেয়ে এক পর্যায়ে তার বাড়িতে থাকার সিদ্ধান্ত নিলে ফরহাদের পরিবারের লোকজন তাকে জোরপূর্বক বাড়ী থেকে বের করে দেয়। সে জানায় তাদের মধ্যে দুই বছরের প্রেমের সম্পর্ক। ফরহাদ আমাকে বিয়ে করতে রাজি আছে কিন্তু তার পরিবারের চাপে সে আমার সাথে দেখা করেনি। ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় ময়না ফরহাদের বাড়ীর পাশে  সুপারি গাছের তলায় বসে আছে। সেই সময় দেবীগঞ্জ থানা এস আই মোঃ হাফিজ ও এ এস আই আব্দুর রহিম এর নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ময়না কে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য দেবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠানো হয়।

দেবীগঞ্জ থানার এস আই মোঃ হাফিজ বলেন চিকিৎসার জন্য ময়নাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ছেলে ফরহাদ এখনো পলাতক। তদন্তের মাধ্যমে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। উদ্ধারের সময় উপস্থিত ছিলেন ভাউলাগঞ্জ ট্রাক্টর শ্রমিক ইউনিয়ন এর সভাপতি মোঃ শাহিনুর ইসলাম শাহিন, ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য।

ফরহাদের মা জানান আমার ছেলে বাড়িতে নেই। কোথায় আছে আমরা কেউ বলতে পারি না। ময়না সকালে হঠাৎ আমাদের বাড়িতে আসে। পরে আমরা তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেই। পূর্ব পরিচিত হলেও তার সাথে যেহেতু আমাদের কোন সম্পর্ক নেই তাই ময়নাকে বাড়িতে থাকতে দিতে পারি না।

Loading...