সংবাদ শিরোনাম
করোনায় ঢাকার সাবেক এমপি মকবুলের মৃত্যু | বরিশালে ঘূর্ণিঝড়ে বিধ্বস্তদের ঘর মেরামত করে দিলেন সেনাবাহিনী | এবার প্রবাসীদের বাড়িতে ঈদ উপহার পাঠালেন মাশরাফি | ইতালিতে ঈদুল ফিতর উদযাপন করলেন ২৫ লাখ মুসল্লি | করোনাকালে “এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট” হিসেবে দায়িত্ব পালনের গল্প | ঠাকুরগাঁওয়ে কর্মহীনদের ঈদ উপহার দিল সেনাবাহিনী | করোনা চিকিৎসায় ১৩টি হাসপাতালে রেমডেসিভির সরবরাহ শুরু | কৃষকদের ধান কেটে দেওয়ায় ছাত্রলীগকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন | জীবিকার স্বার্থে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড চালু করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী | “পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত সরকারি সহায়তা অব্যাহত থাকবে” |
  • আজ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

হুমায়ুন ফরীদির চলে যাওয়ার ৮ বছর

৬:০১ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০ গুণীজন সংবাদ
humayun-faridi

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ বরেণ্য অভিনয়শিল্পী হুমায়ুন ফরীদির অষ্টম মৃত্যুবার্ষিকী আজ বৃহস্পতিবার। ২০১২ সালের এ দিনে রাজধানীর ধানমন্ডিতে নিজ বাসায় মারা যান তিনি। বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে এ গুণী অভিনেতাকে স্মরণ করবে।

মঞ্চ, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র এই তিন অঙ্গনের জনপ্রিয় অভিনেতা হুমায়ুন ফরিদীর জন্ম ১৯৫২ সালের ২৯ মে ঢাকার নারিন্দায়। দুই ভাই, দুই বোনের মধ্যে হুমায়ুন ফরীদি ছিলেন দ্বিতীয়। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগে পড়েছেন। ছিলেন নাট্যচর্চার পুরোধা ব্যক্তিত্ব নাট্যকার সেলিম আল দীনের ঘনিষ্ঠ সহযোগী।

১৯৭৬ সালে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত নাট্য উৎসবের তিনি অন্যতম সংগঠক ছিলেন। এ উৎসবের মাধ্যমেই তিনি নাট্যাঙ্গনে পরিচিত মুখ হয়ে ওঠেন। আশির দশকে ভাঙনের শব্দ শুনি, সংশপ্তক, কোথাও কেউ নেই টিভি নাটক দিয়ে সাড়া ফেলেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রাবস্থাতেই তিনি ঢাকা থিয়েটারের সদস্যপদ লাভ করেন। ১৯৯০-এর দশকে তিনি চলচ্চিত্র জগতে প্রবেশ করেন। সেখানেও তিনি বিপুল জনপ্রিয়তা পান।

বাংলা চলচ্চিত্রে খল চরিত্রে তিনি যোগ করেছিলেন এক নতুন মাত্রা। ‘সন্ত্রাস’ ছবির মাধ্যমে খলনায়ক চরিত্র শুরু হয় তার। তিনি ‘মাতৃত্ব’ ছবির জন্য সেরা অভিনেতা শাখায় জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন ২০০৪ সালে। নিয়মিত অভিনয়ের পাশাপাশি হুমায়ুন ফরীদি তেমন একটা লিখতেন না, তবে কিছু টেলিফিল্ম, ধারাবাহিক ও এক ঘণ্টার নাটক নির্মাণ করেছেন।

দারুণ বুদ্ধিদীপ্ত এবং রোমান্টিক এই মানুষটি ব্যক্তিগত জীবনে প্রথমে বেলি ফুলের মালা দিয়ে ফরিদপুরের মেয়ে মিনুকে বিয়ে করেন। তখন এই বিয়ে সারাদেশে ব্যাপক আলোড়ন তোলে। এ ঘরে তাদের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে, নাম দেবযানি। পরে তিনি ঘর বাঁধেন খ্যাতিমান অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফার সঙ্গে। কিন্তু ২০০৮ সালে তাদের বিচ্ছেদ হয়ে যায়।

আমাদের সবার প্রিয় অভিনেতা হুমায়ুন ফরীদি চলে গেছেন চেনা, অজানা জগতে। যিনি দীর্ঘদিন ধরে অভিনয়শৈলী প্রদর্শন করে পর্দায় আবিষ্ট করে রেখেছিলেন কোটি কোটি দর্শককে। ফরীদি একজন অনুকরণীয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন। তাকে অনুকরণ করে আনন্দ পাওয়া যেত। একজন মানুষ কতটা উচ্চমানের অভিনেতা হলে তাকে অনুসরণ করা যায় ফরীদি ওই উচ্চতার অভিনেতা ছিলেন। যতদিন পর্দায় তার অভিনীত চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে, ততদিন দর্শক তাকে মনে রাখবে। প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম মনে রাখবে তার সৃষ্টিকে। হুমায়ুন ফরীদি আছেন, থাকবেন।