সংবাদ শিরোনাম
করোনার প্রকোপ কমে আসছে বাংলাদেশে: জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয় | ‘বিশ্বকাপের বদলে আইপিএল হলে প্রশ্ন উঠবেই’- ইনজামাম | গত ২৪ ঘন্টায় যুক্তরাষ্ট্রের চেয়েও বেশি মৃত্যু ভারতে | বাংলাদেশিসহ বিশ্বের ১১ লক্ষাধিক শিক্ষার্থীকে যুক্তরাষ্ট্র ত্যাগের নির্দেশ | একদিনে রেকর্ড সংক্রমণে যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা ৩০ লাখ ছাড়াল | করোনা কেড়ে নিল আরও ৫৫ প্রাণ, নতুন শনাক্ত ৩০২৭ | সিলেটে হত্যাচেষ্টা মামলায় হাসপাতালের অফিস সহকারী নূর মোহাম্মদ জেলে | বাংলাদেশে ডাল চাষের সমস্যা ও সম্ভাবনা | কোটালীপাড়ায় পৈত্রিক ভিটায় ‘প্রার্থনা কুঞ্জ’ করতে চেয়েছিলেন এন্ডু কিশোর | নোয়াখালীতে ছয় মাসে ‘৫৪ ধর্ষণ’! |
  • আজ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সংসদে প্রশংসায় ভাসলেন প্রধানমন্ত্রী

১০:০৭ অপরাহ্ণ | সোমবার, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০২০ জাতীয়
pmm

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর আনীত ধন্যবাদ প্রস্তাবের আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের নেতারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করেছেন। তারা বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ, সাহসী ও সৎ নেতৃত্বে বাংলাদেশ বদলে গেছে। বাংলাদেশের উন্নয়ন এখন বিশ্বের কাছে বিস্ময়।

সোমবার আলোচনায় অংশ নেন কৃষি মন্ত্রী ড.আব্দুর রাজ্জাক; স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, হুইপ ইকবালুর রহিম, জাতীয় পার্টির (জেপি) আনোয়ার হোসেন মঞ্জু।

এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশ বদলে দেওয়ার কথা বলেছিলেন। আজ দেশ সত্যিই বদলে গেছে। এটা এমনি এমনি হয়নি। এর পেছনে রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ, সাহসী ও সৎ নেতৃত্ব।

কৃষি মন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেধা, প্রজ্ঞা, দক্ষতা, দেশপ্রেম দিয়ে বাংলাদেশকে ক্রমাগত উন্নত ও সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, রাষ্ট্রপতি তার ভাষণে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গত ১১ বছরে বিভিন্ন খাতে উন্নয়নের সাফল্যের চিত্র তুলে ধরেছেন। দিন বদলের সনদ ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ তথা ক্ষুধা- দারিদ্রমুক্ত উন্নত বাংলাদেশ গড়ার ঘোষণা দিয়ে বর্তমান সরকার দায়িত্ব গ্রহণ করেছিল। আজ ১১ বছরে দেশ খাদ্য, বিদ্যুৎসহ সব ক্ষেত্রে অসাধরণ সাফল্য এসেছে। দেশ আজ মধ্যম আয়ের দ্বারপ্রান্তে। ২০২১ সালের আগেই মধ্যম আয় এবং ২০৪১ সালের মধ্যে সমৃদ্ধ দেশে প্রতিষ্ঠিত হবে।

তিনি গত ১১ বছরে প্রবৃদ্ধি অর্জনে ৭ভাগ বজায় রাখার কথা উল্লেখ করে বলেন, গত অর্থবছরে এ হার দাঁড়িয়েছিল ৮.০২ ভাগ। চলতি অর্থ বছরে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮.২০ ভাগ। এক সময় দারিদ্র হার ছিল ৪০ ভাগ এখন এ হার ২০ ভাগে নেমে এসেছে। অতিদারিদ্র হার ১৭ ভাগ থেকে কমে ১০ ভাগে দাঁড়িয়েছে।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রঞ্জা, দক্ষতা, দেশপ্রেম দিয়ে জাতিকে এ সব সাফল্য এনে দিয়েছেন। এক সময় বাংলাদেশ বিদেশী সাহায্য নির্ভর ছিল। সে সময় বাজেটের প্রায় ২০ ভাগ বিদেশী সাহায্য থেকে আসত। এখন এ হার শতকরা ২ ভাগের নিচে নেমে এসেছে। দেশ এখন প্রায় স্বনির্ভর।

স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম বলেন, মন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব গ্রহনের পর প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী মন্ত্রণালয়ের অধীন সব সংস্থা গুলোকে নিয়ে আন্তরিকতার সাথে কাজ করছি। দেশের বড় বড় নদীসহ সব নদী দুষণমুক্ত করতে এলজিআরডি থেকে একটি মাস্টার প্ল্যান করা হয়েছে। সে অনুযায়ি একশন প্ল্যান করে কাজ করা হচ্ছে। প্রতিটি মন্ত্রণালয় স্ব-স্ব দায়িত্ব বন্টন করে নিয়ে এ ব্যাপারে কাজ করে হচ্ছে।