সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ফেনীর কুসুমবাগ ছিলো পাপিয়ার প্রিয় জায়গা!

৬:৩৫ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২০ চট্টগ্রাম, দেশের খবর

আবদুল্লাহ রিয়েল, ফেনী প্রতিনিধি: নরসিংদী জেলা যুব মহিলা লীগের সদ্য বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক শামিমা নূর পাপিয়ার আনাগোনা শুধু ঢাকা কিংবা তার আশেপাশে নয়, তার অবাধ বিচরণ ছিল ঢাকার বাইরের জেলাগুলোতেও। এই পাপিয়াকে অনেকবারই ফেনীর কুসুমবাগে দেখা গেছে।

জানা যায়, প্রধানত সম্রাটের প্রধান সহযোগী আরমানের সঙ্গেই তাকে সচরাচর দেখা গিয়েছে। আরমান নিজেও কিছু সিনেমা তৈরি করেছে। তার নির্মাণাধীন কয়েকটি সিনেমা আছে। এসব ছবিতে অভিনয় করার জন্য মেয়েদের সরবরাহ করতো এই পাপিয়া। অবুঝ ও সহজসরল এসব মেয়েদের অভিনয়ের কথা বলে আনা হলেও তাদের বাধ্য করা হতো অবৈধ যৌনকর্মে। যেসব মেয়েরা আপত্তি করেছে তাদের উপর নেমে এসেছে অমানুবিক নির্যাতন।

স্থানীয়রা জানায়, কুসুমবাগ নামের এই বাড়ির মালিক বাবুল। সে কারমো ফোমের মালিক। সে একজন ধর্ণাঢ্য ব্যক্তি। বাড়িটিতে দারোয়ান ছাড়া কেউ থাকে না। তবে গত এক বছর থেকে এই বাড়িতে বিশেষ করে রাতের বেলায় লোকজনের আনাগোনা বেড়ে গিয়েছিল।

একপর্যায়ে কারমো ফোমের মালিকের নিয়ন্ত্রণেও ছিল না বাড়িটি। প্রভাবশালীরা তার অনুমতি ছাড়াই বাড়িতে বসবাস করতে শুরু করে। সম্রাট নিজেও এই বাড়িতে অবস্থান করেছিল। পাপিয়া, আরমানসহ আরো কিছু অল্প বয়সি মেয়েদের নিয়ে সেখানেই অবস্থান করেছেন।

আর বাবুল এসব ব্যাপারে যখন জানতে পারে তখন তাকে প্রভাবশালীরা কঠোরভাবে হুমকি দেয়। এমনকি তার বাড়িটি পুড়িয়ে দেয়ার হুমকিও দেয়া হয়েছিল বলে স্থানীয় একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এই বাড়িটির অবস্থান ফেনীর সার্কেট হাউস থেকে এক কিলোমিটারের মধ্যে। বাড়িটি ভিতরে বাইরে খুবই সুসজ্জিত। অনেকে বাড়িটিকে বাগানবাড়িও বলে থাকে। এখানে পাপিয়ার অপকর্মের ঘটনা অনেকের জানা থাকলেও কেউ ভয়ে মুখ খুলতো না।

তবে বহিষ্কৃত এই যুব মহিলা লীগ নেত্রীকে এখন রিমান্ডে নেয়া হয়েছে। ফেনীর বিষয় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে অনেক প্রভাবশালী লোকের রহস্যময় ঘটনা বেরিয়ে আসবে বলে মনে করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

Loading...