সমন্বিত নয়, ভর্তি পরীক্ষা হবে গুচ্ছ পদ্ধতিতে

১১:২৫ অপরাহ্ণ | বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২৬, ২০২০ শিক্ষাঙ্গন
borti

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কেন্দ্রীয়ভাবে একটি ভর্তি পরীক্ষা নয়, বরং চারটি আলাদা গুচ্ছভিত্তিক পরীক্ষার বিষয়ে সম্মতি দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর উপাচার্যরা। সমমনা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে চারটি গুচ্ছে ভাগ করে এই ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে।

পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষায় না আসায় বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) চারটি গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয় ইউজিসি। নতুন পদ্ধতিতে অনলাইনে আবেদনের পর পরীক্ষার্থীদের ছয়টি পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে।

এতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য একটি, প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য একটি, কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য একটি এবং সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্য আরেকটি গুচ্ছ করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হবে। বড় পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া বাকিরা এই পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেবে।

ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, যেহেতু পাঁচটি বড় বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষায় আসছে না, তাদের লজিস্টিক সাপোর্ট ছাড়া, বিশেষ করে সিট বণ্টনে সমস্যা হতে পারে। এছাড়াও কিছু কিছু সমস্যা হতে পারে, যেগুলো নিয়ে সার্বিক আলোচনার পরেই আমরা গুচ্ছভিত্তিক পরীক্ষার ফরম্যাটে গিয়েছি।

কাজী শহীদুল্লাহ আরও বলেন, এজন্য ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক দিল আফরোজা বেগমকে সমন্বয়কারী হিসেবে রেখে বিষয়গুলো মনিটর করার জন্য কমিটি করে দেওয়া হবে। মার্চের প্রথম সপ্তাহে কমিটিগুলো করার জন্য আমরা আবার বসব। এসব গুচ্ছের আলাদা আলাদা কিছু বৈশিষ্ট্য থাকবে, তাই তাদের আলাদাভাবেও বসতে হবে। মার্চের দ্বিতীয় সপ্তাহ নাগাদ চূড়ান্ত বিষয়গুলো জানা যাবে।

প্রক্রিয়াটি দীর্ঘায়িত হচ্ছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দীর্ঘায়িত হবে কেন, আমরা বলেছি এই বছর থেকেই আমরা নতুন একটা কিছুতে যাব। আমরা প্রোগ্রেস করছি, যেহেতু পাঁচটি বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষার ব্যাপারে একমত হয়নি, তাই আমাদের বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করতে হয়েছে। মার্চের শুরু থেকেই টেকনিক্যাল কমিটিগুলো বসে সব ঠিক করবে। গুচ্ছ পরীক্ষার বিষয়ে আমরা সবাই নীতিগতভাবে একমত হয়েছি।

বড় যে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আসেনি, তাদের আনতে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন, গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষায় কোনো একটি বিশ্ববিদ্যালয় একেকটি গুচ্ছের পরীক্ষার নেতৃত্ব দিবে যেটাও ওই সময় ঠিক করা হবে। আমরা চাই সবাই আসুক, যারা কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় আসতে রাজি হয়নি, তারাও যদি গুচ্ছ পরীক্ষায় আসতে চায় আমরা স্বাগত জানাব।