দিল্লির সমস্যা সমাধান করুন: ভারতকে ওবায়দুল কাদের

৯:৩৪ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২০ স্পট লাইট

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক:মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে গড়ে উঠা বন্ধুরাষ্ট্র ভারতকে বাদ দিয়ে আমরা মুজিববর্ষ উদযাপন করতে পারি না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

শুক্রবার বিকালে রাজধানীর হাতিরপুলে ফিকামলি সেন্টারে শহীদ সেলিম-দেলোয়ার দিবসের আলোচনা সভায় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা জানান।

এক প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, প্রতিবেশী দেশ ভারতের দিল্লি শহরে আভ্যন্তরীণ সমস্যা চলছে। ভারতের আভ্যন্তরীণ সমস্যা হলেও প্রতিবেশীর বাড়িতে আগুন লাগলে পাশের ঘরে আচ লাগে। ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক খুবই ভালো। আমরা আহ্বান জানাই আলাপ-আলোচনা করে এই আভ্যন্তরীণ সমস্যা সমাধান করার।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় রক্তের যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি হয়েছে, সেটা আমরা বিসর্জন দিতে পারি না। এ বছর আমরা মুজিববর্ষ উদযাপন করব। মুজিববর্ষে ভারতকে যদি বাদ দেই, সেটা অকৃতজ্ঞতা দেখানো হবে। মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে গড়ে উঠা বন্ধু ভারতকে বাদ দিয়ে আমরা মুজিববর্ষ পালন করতে পারি না। আমরা আহ্বান জানাই, তারা আলোচনা করে দ্রুত এই চলমান সমস্যা সমাধান করবে।

ডেঙ্গু মোকাবিলায় এবার আগে-ভাগেই দুই মেয়রকে প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এ প্রসঙ্গ তুলে ধরে সেতুমন্ত্রী বলেন, গত বছর ডেঙ্গুর প্রকোপ দেখা দিয়েছিল। আবারও এ ধরণের সমস্যা যাতে না হয়, এজন্য ঢাকার নবনির্বাচিত দুই মেয়ের শপথের সময় প্রস্তুতি নেয়ার কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এজন্য প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ভোট যেন মশায় না খায়। আশা করি- মেয়ররা প্রস্তুতি নেবেন। জনগণকে প্রস্তুতি নেয়াবেন।

সভায় ওবায়দুল কাদের চলমান অপকর্মের বিরুদ্ধে চলমান শুদ্ধি অভিযানে সবাইকে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা অপকর্মের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান শুরু করেছেন। তিনি দলের লোককে ছাড় দিচ্ছেন না। এই শুদ্ধি অভিযানে সহযোগিতা করার জন্য আমি সবাইকে অনুরোধ করছি।

শহীদ সেলিম-দেলোয়ারের রাজনৈতিক সহযোদ্ধা ড. মো. আবদুল ওয়াদুদের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের সভাপতি রুহুল আমিন, আইনজীবী নেতা মমতাজ উদ্দিন মেহেদী প্রমুখ।

আরও পড়ুন…. দিল্লির দাঙ্গা নিয়ে বাংলাদেশের বিশিষ্টজনদের উদ্বেগ….

ভারতের রাজধানী দিল্লিতে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের লেখক, অধ্যাপক, সাহিত্যিকসহ বিভিন্ন পেশার শীর্ষস্থানীয়রা।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এক যৌথ বিবৃতিতে তারা এ উদ্বেগের কথা জানান।

বিবৃতিতে বলা হয়, আমরা বন্ধুপ্রতিম পড়শি ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সহায়তাকারী পরীক্ষিত বন্ধুরাষ্ট্র ভারতের এহেন দাঙ্গা পরিস্থিতিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি। একইসঙ্গে এই শঙ্কা প্রকাশ করছি যে, পরিস্থিতি সম্মিলিতভাবে সামাল দিতে না পারলে পার্শ্ববর্তী দেশসমূহে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি হতে পারে, যা এ অঞ্চলের দেশসমূহের শান্তি, গণতন্ত্র, উন্নয়ন ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করবে।

সহিংস পরিস্থিতির দ্রুত অবসানে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে ভারত সরকার ও জনগণের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বাংলাদেশি লেখক-অধ্যাপক ও সংস্কৃতিকর্মীরা। পাশাপাশি সাম্প্রদায়িকতার বিষবাষ্প যেন বাংলাদেশে না আসতে পারে, সে জন্য স্বদেশিদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশের সংগ্রামী জনগণকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ঐতিহ্য সম্মুন্নত রাখতে বিশেষভাবে আহ্বান জানাই। সহিংসতার বিরুদ্ধে সম্প্রীতির সচেতন জাগরণ সব ধর্মান্ধতাকে রুখে দেবে, এ আমাদের বিশ্বাস।

বিবৃতিতে স্বাক্ষরদাতাদের মধ্যে রয়েছেন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, কলামিস্ট আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী, কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, অধ্যাপক অনুপম সেন, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি সারোয়ার আলী, মফিদুল হক, জিয়াউদ্দিন তারিক আলী, নাট্যব্যক্তিত্ব সৈয়দ হাসান ইমাম, রামেন্দু মজুমদার, মামুনুর রশীদ, নাসির উদ্দীন ইউসুফ, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ।