• আজ ১৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

গোপালগঞ্জে ওড়াকান্দির ২০৯ বছরের ঐতিহ্যবাহী মহাবরুনীর মেলা স্থগিত

৮:১৮ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, মার্চ ১৯, ২০২০ ঢাকা, দেশের খবর

এইচ এম মেহেদী হাসানাত, স্টাফ রিপোর্টার, গোপালগঞ্জ- গোপালগঞ্জে কাশিয়ানী উপজেলার শ্রীধাম ওড়াকান্দির শ্রী শ্রী হরিচাঁদ ঠাকুরের ২০৯ বছরের ঐতিহ্যবাহী মহাবরুনীর মেলা স্থগিত করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে মেলার প্রস্তুতি ও করনো পরিস্থিতি নিয়ে আয়োজিত যৌথ পর্যালোচনা সভায় মেলা স্থগিতের ঘোষণা দেন কাশিয়ানী উপজেলা চেয়ারম্যান, ঠাকুর পরিবারের সদস্য ও মেলা প্রস্তুতি কমিটির সভাপতি সুব্রত ঠাকুর হিল্টু।

সুব্রত ঠাকুর হিল্টু বলেন, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মহামারী আকার ধারণ করেছে। সারা বিশ্ব এ ভাইরাস নিয়ে আতংকিত। দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় ২ শ’ বছরের মহা বারুনীর মেলা সহ আনুসংগিক সবকিছু এ বছর স্থগিত করা হলো।

তিনি বলেন, করোনা প্রতিরোধে জনসমাগম এড়িয়ে চলতে হবে। সে বাস্তবতায় আমরা মেলা ও আনুসাঙ্গিক সব কিছু স্থগিতের ঘোষনা দিয়েছি।

তিনি আরো জানান, পূর্ণব্রহ্ম শ্রীশ্রী হরিচাঁদ ঠাকুর ২ শ’ বছর আগে শ্রীধাম ওড়াকান্দিতে মহাবারুনীর মেলা ও স্মানোৎসব প্রচলন করেন। পূণ্য লাভের আশায় এ অনুষ্ঠানে প্রতি বছর ভারত, নেপাল সহ বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার ঠাকুরের ১০ লাখ ভক্তের সমাগম ঘটে।

জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার মুহাম্মদ সাইদুর রহমান খান, সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ সহ আরো অনেকে বক্তব্য রাখেন। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধূরী এমদাদুল হক, সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, ঠাকুর পরিবারের সদস্য শ্রী সম্পদ ঠাকুর, মেলা পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্মল সরকার, গোপালগঞ্জ জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী দীপক চন্দ্র তালুকদার, কমিউনিস্ট নেতা ডা. অসিত বরণ রায় সহ আরো অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেন, মোবাইল কোর্ট করে করোনা প্রতিরোধ করা যাবে না। প্রবাসীদের এ ব্যাপারে সচেতন হতে হবে। এ রোগ প্রতিরোধে সবাইকে সহযোগিতার হাত প্রসারিত করতে হবে। করোনার কারণে ওড়াকান্দির মেলা স্থগিত করেছে মেলা কর্তৃপক্ষ।

গোপালগঞ্জে পুলিশ সুপার মুহাম্মদ সাইদুর রহমান খান বলেন, হোম কোয়ারেন্টাইন না মানলে জেলা প্রশাসন মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করবে। পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে জেলে পাঠাবে। এ ব্যাপারে আইন রয়েছে।

গোপালগঞ্জে সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ জানান, গোপালগঞ্জে ৭১ জন হোম কোয়ারেন্টাইনের রয়েছে। এদের মধ্যে ৬৯ জন প্রবাসী ও ২ জন স্থানীয় বাসিন্দা। জেলায় এখনো কেউ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়নি। এছাড়া গোপালগঞ্জ জেনারেল হাসপতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে কেউ ভর্তি নেই বলেও জানান ওই কর্মকর্তা।