সংবাদ শিরোনাম
করোনা: প্রধানমন্ত্রীর তহবিলে ১০ কোটি টাকা দিচ্ছে বসুন্ধরা গ্রুপ | করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তার আশ্বাস ব্রিটিশ পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর | করোনা আক্রান্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে সমবেদনা জানিয়ে শেখ হাসিনার চিঠি | শেষবারের মতো মায়ের মুখটাও দেখতে পারলেন না হাবিবুল বাশার | গাজীপুরে জীবাণুনাশক স্প্রে করেছে ছাত্রলীগ | করোনা প্রতিরোধে লকডাউন, ইউরোপে বাড়ছে গৃহদ্বন্দ্ব ও সহিংসতা | বাবা প্রবাসে, মায়ের পরকীয়ার বলি হলো সাত বছরের মেয়ে! | স্ত্রীসহ করোনায় আক্রান্ত কাজী মারুফ | এবার সেই নারী এসিল্যান্ডকে ধর্ষণের হুমকি! | ‘জ্বর-শ্বাসকষ্টে’ ভুগছে এক পরিবারের সবাই, ভয়ে হাসপাতালেই নিচ্ছে না কেউ! |
  • আজ ১৫ই চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

প্রশাসনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে লক্ষ্মীপুরে চলছে কোচিং ক্লাস

৯:০৫ অপরাহ্ণ | শনিবার, মার্চ ২১, ২০২০ চট্টগ্রাম
lokkhipur

মু.ওয়াছীঊদ্দিন, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশে সব ধরণের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে সরকার। সে নির্দেশ উপেক্ষা করে লক্ষ্মীপুরে এখনও চলছে কোচিং সেন্টার। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত খ্যাতনামা স্কুল-কলেজের শিক্ষকরা চালিয়ে যাচ্ছেন বাণিজ্যিক এই কার্যক্রম।

শনিবার (২১ মার্চ) সকালে লক্ষ্মীপুর সরকারি মহিলা কলেজ, লক্ষ্মীপুর সরকারি কলেজ ও হাউজিং রোড এলাকা সহ জেলার কয়েকটি স্থানে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন কোচিং সেন্টারে কোচিং করতে যাচ্ছেন। ছোট্ট একটি কক্ষে গাদা-গাদি করে অনেকেই বসে রয়েছেন। আবার কেউ কোচিং শেষে বাসায় ফিরছেন।

বিপ্লব কোচিং সেন্টারের মালিক ও লক্ষ্মীপুর কমার্স কলেজের শিক্ষক পরিচয়দানকারী মো. বিপ্লব বলেন, সরকারি নির্দেশনা পাওয়ার পরই সেন্টারটি বন্ধ করে দিয়েছি। আজ ভুলে শিক্ষার্থীরা চলে আসায় বাড়ির কাজ দেখিয়ে দিচ্ছেন, কোচিং করাচ্ছেন না।

শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা বলেন, সরকারি নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও শিক্ষরা কোচিং সেন্টার খোলা রেখেছে। এজন্য প্রতিদিনই কোচিংয়ে যেতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। তবে কয়েকজন একসঙ্গে পড়ালেখা করা ঝুঁকিপূর্ণ বলে তারাও মনে করেন। আগামী কাল থেকে সন্তানকে কোচিংয়ে পাঠাবেন না বলে জানান তারা। করোনা থেকে রক্ষা পেতে বাণিজ্যিক এই প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধের জন্য প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেন অভিভাবকগণ।

কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ করা জেলা শিক্ষা অফিসের দায়িত্ব, এজন্য এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করেননি জেলা প্রশাসক অঞ্জন চন্দ্র পাল।

লক্ষ্মীপুর জেলা শিক্ষা অফিসের সহকারী পরিদর্শক মো. ইব্রাহীম খলিল বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষকদের শিক্ষা কার্যক্রম ও কোচিং সেন্টার বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে। সে আদেশ কেউ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। কোন শিক্ষক ও সেন্টারের বিরুদ্ধে অভিযোগ পেলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

Loading...