সাংবাদিক পেটানো সেই আ.লীগ নেতার ছেলে গ্রেপ্তার

৪:২৯ অপরাহ্ণ | বুধবার, এপ্রিল ১, ২০২০ আলোচিত বাংলাদেশ

সময়ের কণ্ঠস্বর, ভোলা- ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলায় সাংবাদিক সাগর চৌধুরীকে নির্যাতন ও এই নির্যাতনের ঘটনা ফেসবুকে লাইভ করায় উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও স্থানীয় বড় মানিকা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন হায়দারের ছেলে নাবিল হায়দারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বুধবার (০১ এপ্রিল) দুপুরে বোরহানউদ্দিনের পৌর এলাকায় নাবিলের নিজ বাসভবন থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে ভোলার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে হস্তান্তর করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আগামীকাল তাকে কোর্টে প্রেরণ করা হবে।

এর আগে মঙ্গলবার গভীর রাতে নাবিল হায়দারকে আসামি করে বোরহানউদ্দিন থানার মামলা করেন স্থানীয় অনলাইন পোর্টাল ডব্লিউ ৩৬০ ডিগ্রির সম্পাদক ও প্রকাশক সাগর চৌধুরী। সেই মামলায় গ্রেপ্তার করা হয় নাবিলকে।

নাবিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি এসএম হলের আবাসিক ছাত্র এবং ছাত্রলীগের একজন সক্রিয় কর্মী।

জানা গেছে, ভোলার বোরহানউদ্দিনে মোবাইল চুরির অভিযোগ এনে স্থানীয় সাংবাদিক সাগর চৌধুরীকে প্রকাশ্যে নির্যাতন করে নাবিল হায়দার। এই নির্যাতনের ভিডিও সোস্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হলে সাংবাদিক সমাজের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে হামলাকারী নাবিল হায়দারকে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

এই ঘটনায় সাগর চৌধুরী বাদি হয়ে তাকে নির্যাতনের ঘটনায় মঙ্গলবার দিবাগত রাত দেড়টায় নাবিল হায়দারকে এক নম্বর এবং অজ্ঞাত পাঁচ জনকে আসামি  করে থানায় মামলা করেন।

পরে অতিরিক পুলিশ সুপার লালমোহন সার্কেলের রাসেলুর রহমান বোরহানউদ্দিন থানা পুলিশের একটি টিম নিয়ে আজ বুধবার দুপুরে নাবিল হায়দারকে নিজ বাসভবন থেকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের পর তাকে ভোলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের প্রেরণ করা হয়। নাবিলকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আগামীকাল বৃহস্পতিবার কোর্টে প্রেরণ করা হবে বলে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

নির্যাতিত সাংবাদিক সাগর চৌধুরী জানায়, জেলেদের বরাদ্দকৃত চাল রাতের আধারে চুরি করে নিয়ে যাওয়ার ঘটনাটি আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে জানাই। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ছাত্রলীগ নেতা নাবিল হায়দার আমাকে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে চুরির অপবাদ দিয়ে প্রকাশ্যে রাস্তার উপর নির্যাতন চালায়। এমনকি নাবিল এ ঘটনাটি ভিডিও করে ফেইসবুকেও ভাইরাল করে। তিনি এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন।

জেলা পুলিশ সুপার সরকার মোহাম্মদ কায়সার বলেন, বোরহানউদ্দিনের সাংবাদিক সাগর চৌধুরীর উপর হামলার ঘটনায় রাতে বোরহানউদ্দিন থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। মামলা দায়েরের হামলাকারী নাবিলকে গ্রেফতার করতে পুলিশ রাতে অভিযান চালায়। পরে দুপুরের দিকে নাবিলের নিজ বাসভবন থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বর্তমানে সে ভোলা থানা হেফাজতে রয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে বৃহস্পতিবার কোর্টে প্রেরণ করা হবে। বাকী আসামীদের গ্রেফতার করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত থাকবে।