মির্জাপুরে কাজ খুঁজতে এসে বিপাকে পড়েছেন দিনমজুররা

৮:২১ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ১৬, ২০২০ ঢাকা, দেশের খবর

মো. সানোয়ার হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি- টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে কাজের সন্ধানে এসে বেকার হয়ে বসে রয়েছেন বেশ কিছু দিনমজুররা। কাজ না পেয়ে এখন মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন তারা।

দিনশেষে সন্ধ্যার পর প্রায় ৩০-৪০ জন দিন মজুরদের দেখা মিলেছে মির্জাপুর বাইপাস স্ট্যান্ড এলাকায়। এছাড়াও সদরের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষিপ্তভাবে রাত্রি কাটাচ্ছেন তারা।

সরজমিনে বৃহস্পতিবার (১৬ এপ্রিল) সন্ধ্যায় বিপাকে পড়া বেশ কয়েকজন দিন মজুরের সাথে কথা হলে তারা তাদের মানবেতর জীবনের কাটানোর কথা জানান। পাবনা থেকে আসা দিন মজুর খলিল মিয়া (৫৫) বলেন, কিছু টাকার আশায় কাজ করতে আইছিলাম। কিন্তু আইসা আটকা পইড়া গেছি। কাজও পাইনা, বাড়িও যাইতে পারিনা। চিড়া খেয়ে দিন পাড় করতাছি।

রংপুর জেলার দিন মজুর মজিবর (৫০) বলেন, কাজতো নাই, হঠাৎ যদি কোন কাজ পাই তাও তারা টাকা বাড়িয়ে দিতে চাইলেও খাবার দিতে চায়না। দিন মজুর মোতালেব মিয়া বলেন, আমার বাড়ি কালিহাতি উপজেলা। কিন্তু রাস্তায় গাড়ি চলেনা তাই বাড়ি যাইতে পারতাছিনা। কাজ থাকলেও করোনার ভয়ে কেউ কাজের জন্য নেয় না।

এদিকে কাজের সন্ধানে আসা দিন মজুরদের মানবেতর জীবন যাপনের খবর পেয়ে রাতের বেলা রান্না করা খাবার প্যাকেট নিয়ে হাজির হচ্ছেন অনেক তরুণ। এরমধ্যে রয়েছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির (সাবেক) সদস্য মীর সাব্বির, স্থানীয় এমপি মো. একাব্বর হোসেনের ছেলে ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক তাহরীম হোসেন সীমান্ত, গোপালগঞ্জ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কর্মী খান ওয়ালিউর রহমান আকাশ প্রমুখ।

এমন বিপদগ্রস্থ মানুষদের মাঝে রান্না করা খাবার তুলে দেওয়া তরুণ ছাত্রলীগ কর্মী খান ওয়ালিউর রহমান আকাশ বলেন, আমরা কয়েকজন বন্ধু মিলে চাঁদা তুলে শুধুমাত্র রাতের খাবার রান্না করে অসহায়দের দিচ্ছি। কিন্তু এভাবে আমরা কতদিন তাদের মুখে খাবার তুলে দিতে পারবো জানিনা। তাদের একটি স্থায়ী ব্যবস্থা হলে ভাল হতো।

বিপাকে পড়া দিন মজুরদের বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবদুল মালেক জানান, মির্জাপুরে বিপাকে পড়া দিন মজুরদের একত্রিত করে এক জায়গায় নিয়ে আসার কথা ভাবছি এবং সেখানে তাদেরকে সরকারি খাদ্য সামগ্রী সরবরাহের মাধ্যমে যেন থাকা খাওয়ায় সমস্যা না হয় সে বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।