🌏 সংবাদ শিরোনাম

সরকার পার্বত্য চট্টগ্রামসহ সর্বত্র শান্তি বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর: প্রধানমন্ত্রী | চাঁদপুরে মাস্ক পরা অভিযানে প্রশাসনের জালে ছিনতাইকারী! | তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপন প্রকল্পের অনুমোদন | করোনা মুক্ত জেমি ডে, যাচ্ছেন কাতারে | বাবুনগরী ও মামুনুলকে দ্রুত গ্রেপ্তারের দাবি ৬৫ সংগঠনের | আইসিডিডিআর,বির সঙ্গে ভ্যাকসিন ট্রায়াল চুক্তি বাতিল করলো গ্লোব বায়োটেক | সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দালাল দৌরাত্ব, রোগীরা সেবা বঞ্চিত | "ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে ইতিহাস-ঐতিহ্যকে নষ্ট করতে চাইলে সহ্য করা হবে না" | ছাদ থেকে লাফিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর আত্মহত্যা | নভেম্বরে ৩৫৩ নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার, ধর্ষণ ১৫৩ |

  • আজ ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
  • f

'কেবল বাংলাদেশেই আমরা কোনো সমর্থন পাই না'- রোহিত

⏱ ১:৪৬ অপরাহ্ন | শনিবার, মে ১৬, ২০২০ 📂 খেলা
tamim

স্পোর্টস আপডেট ডেস্কঃ বিশ্বের অন্যসব দেশের মাঠে সমর্থকের উল্লাস-উদ্দীপনার দেখা পেলেও বাংলাদেশেই আমরা কোনো সমর্থন পাই না বলে আক্ষেপ করেছেন ভারতের ওপেনার রোহিত শর্মা। শুক্রবার (১৫ মে) রাতে তামিম ইকবালের সঙ্গে ফেসবুক লাইভে যুক্ত হয়ে এ আক্ষেপের কথা জানান তিনি।

রোহিত বলেন, ‘গ্যালারিতে সমর্থক ছাড়া খেলার সঙ্গে ভারতের জাতীয় ক্রিকেট দল অভ্যাস্ত নয়। কিন্তু আমরা যখন বাংলাদেশের মাঠে খেলতে নামি, অবিশ্বাস্য ব্যাপার ঘটে যায়। কারণ বাংলাদেশই একমাত্র জায়গা, যেখানে আমরা কোনো সমর্থনই পাই না।’

বাংলাদেশ ২০০৭ বিশ্বকাপে ভারতকে হারায়। এরপর ২০১২ এশিয়া কাপে শচীনের শততম সেঞ্চুরির ম্যাচে জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। তখন থেকেই ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচ দর্শকপ্রিয়তা পেতে শুরু করে। ২০১৫ বিশ্বকাপে কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের কাছে হারে বাংলাদেশ। কিন্তু ওই ম্যাচের কিছু বিতর্কিত সিদ্ধান্ত দু’দলের সমর্থকদের মধ্যে আগুনে উত্তাপ ছড়াই।

এরপর চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সেমিফাইনাল, নিদাহাস ট্রফি, এশিয়া কাপের ফাইনালে ওই উত্তাপ বাড়ে।বাংলাদেশে খেলতে আসলে তাই দর্শকদের দুয়ো শুনতে হয় ভারতের। পায় না কোন সমর্থন। রোহিত তাই বলেন, ‘যেখানেই আমরা খেলতে যাই না কেন, সমর্থন পাই। ভক্তরা মাঠে আসেন। কেবল বাংলাদেশে আমাদের কোনো সমর্থন জোটে না।’

তখন সশব্দ হাসিতে তামিম বলেন, ‘মাঠের পুরো দর্শক আমাদের সমর্থন দেন। রোহিত বাংলাদেশের সমর্থকদের টুপি খোলা সম্মান জানান। তার মতে বাংলাদেশের দর্শক অসাধারণ। খেলাটা দারুণ উপভোগ করেন তিনি। ভারতের ওয়ানডে দলের এই সহ-অধিনায়ক জানান, বাংলাদেশ দলও এখন পরিবর্তিত এক দল। তারা যেভাবে খেলছে ভবিষ্যতে বলা যায় যা কিছু করে খেলতে পারে এই দল।

বিপিএল প্রসঙ্গে রোহিত বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ ক্রিকেটের ব্যাপারে অনেক আবেগপ্রবণ। এমনটা বাংলাদেশ ছাড়া আর কোথাও দেখিনি সত্যি। আমার মনে হয়, এই উৎসাহটা যদি দর্শকদের মাঝে ছড়িয়ে দেয়া যায় তাহলে আরও ভালো হবে।’

‘(বিপিএলে) দুই-তিনজন খেলোয়াড় যদি কয়েকবছর নির্দিষ্ট একটি ফ্রাঞ্চাইজির হয়ে খেলে তাহলে তাদের সমর্থকগোষ্ঠিও বৃদ্ধি পাবে। দর্শকরা একটা দলকে সেভাবেই সাপোর্ট করতে পারবে। ধরো, তুমিসহ (তামিম) আরও কয়েকজন ঢাকার হয়ে অনেক বছর খেললে। আমার মনে হয় বিসিবির এমন কিছু করা উচিৎ।’

এমনটা না হলে দর্শকদের আগ্রহ কমে যাওয়াই স্বাভাবিক বলে মনে করেন আইপিএলের ইতিহাসের সফলতম অধিনায়ক রোহিত শর্মা। তার ভাষ্য, ‘কয়েকজন মূল খেলোয়াড়কে এক দলে অনেক বছর রাখা উচিৎ, নাহলে দর্শকদের উৎসাহ হারিয়ে যাবে। ধরো, তারা তোমার জন্য এক দলকে সমর্থন দিচ্ছে, কিন্তু এরপর শুনলো যে তুমি অন্য দলে চলে গেছ, তখন তাদের আবার আরেক দলকে সমর্থন দিতে হবে।’

‘আমাদের মনে রাখা উচিৎ দর্শকরা খেলার আগ্রহ আরও বাড়িয়ে দেয়। সেটা শুধু ক্রিকেট না, যেকোন খেলাই হতে পারে। আমাদের কাছেও ভক্তদের গুরুত্ব অনেক বেশি। তুমি তাদের খেয়াল না রাখলে, তারাও তোমার খেয়াল করবে না।’