পায়রা থেকে ৬৯০ কিমি দূরত্বে আম্ফান, বুধবার সকালে ‘মহাবিপদ’ সংকেত

৬:০৮ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, মে ১৯, ২০২০ Breaking News, ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান। এরই মধ্যে উপকূলীয় জেলায় শুরু হয়েছে ঝড়-বৃষ্টি। বর্তমানে দেশের উপকূলীয় এলাকাগুলোর মধ্যে পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে সবচেয়ে কাছাকাছি, ৬৯০ কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড়টি।

এই গতিবিধি অনুযায়ী আগামীকাল বুধবার (২০ মে) সকাল ৬টায় মহাবিপদ সংকেত ঘোষণা করা হবে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মোহাম্মদ এনামুর রহমান।

ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’ মোকাবিলায় আজ মঙ্গলবার সরকারের প্রস্তুতি বিষয়ে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে প্রতিমন্ত্রী এ কথা জানান। এর আগে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা করেন প্রতিমন্ত্রী।

ঘূর্ণিঝড়ের সর্বশেষ অবস্থা তুলে ধরে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম বন্দর থেকে ৮১০ কিলোমিটার, কক্সবাজার বন্দর থেকে ৭৬৫ কিলোমিটার, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৯৫ কিলোমিটার ও পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৯০ কিলোমিটার দূরে রয়েছে।

তিনি বলেন, এখন আমাদের প্রধান লক্ষ্য হলো, উপকূলবাসী যারা ঝুঁকিপূর্ণ ঘরবাড়িতে বসবাস করছেন তাদের সাইক্লোন শেল্টারে নিয়ে আসা। গতকাল থেকে এই কাজটি শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে বিপুল সংখ্যক লোককে আমরা সাইক্লোন শেল্টারে নিয়ে আসছি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘চলমান করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই ঘূর্ণিঝড় আম্পান আসছে বাংলাদেশের দিকে। ঝড়ের সর্বোচ্চ গতি এখন ঘণ্টায় ২৪৫ কিলোমিটার। তাই এটিকে সুপার সাইক্লোন বলা হচ্ছে। আমরা উপকূলসহ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় যারা আছেন তাদের আশ্রয়কেন্দ্রে নিয়ে আসার কাজটি করছি। আজ রাত ৮টার মধ্যেই সবাইকে আশ্রয়কেন্দ্রে আনা হবে। বুধবার সকাল ৬টা থেকে মহাবিপদ সংকেত দেখানো হবে।’

আগামীকাল সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে ঘূর্ণিঝড়টি উপকূল অতিক্রম করবে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সকল চিকিৎসার ব্যবস্থা, নৌবাহিনী উপকূলের মানুষকে নিরাপদে আনার জন্য সহযোগিতা করছে এবং সকল বড় জাহাজগুলো নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলেও জানান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী। এছাড়াও করোনাভাইরাসের জন্য সেনাবাহিনীর যেসব সদস্য মাঠে কাজ করছে তারাও ঝুঁকিতে থাকা মানুষদের আশ্রয়কেন্দ্রে আনতে সহায়তা করবেন।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ১২ হাজার ৭৮টি আশ্রয় কেন্দ্র প্রস্তুত করা হয়েছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এতে ৫১ লাখ ৯০ হাজার ১৪৪ জন লোক থাকতে পারবে। তবে আমরা যেহেতু কোভিড-১৯ সংক্রমণ নিয়ে চিন্তিত, সেখানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে, সেজন্য সেখানে আমরা ২০ থেকে ২২ লাখ লোককে সরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র সময় আমরা ১৮ লাখ মানুষকে আশ্রয় কেন্দ্রে এনেছিলাম এবং ‘বুলবুল’- এর সময় ২২ লাখ লোককে আমরা আনতে পেরেছিলাম।